kalerkantho

শুক্রবার । ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭। ৭ আগস্ট  ২০২০। ১৬ জিলহজ ১৪৪১

ইউএনও’র পরিচয়ে বিকাশে হাতিয়ে নিল ৪০ হাজার টাকা

রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

৫ জুলাই, ২০২০ ২৩:৩৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইউএনও’র পরিচয়ে বিকাশে হাতিয়ে নিল ৪০ হাজার টাকা

রাউজানের ডাবুয়ার বিখ্যাত ‘জগন্নাথ মিষ্টি ঘর’ প্রকাশ ‘চড়–ইয়্যার মিষ্টির দোকান’ মালিককে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পরিচয় দিয়ে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে ৪০ হাজার টাকা। বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে দোকান বন্ধ করে দেবে, ২ লাখ টাকা জরিমানা দিতে হবে, ৬ মাসের জেল দেবেসহ নানা হুমকি দিয়ে বিকাশের মাধ্যমে ওই টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারক চক্র।

দোকান মালিকের ছোট ভাই রূপম চৌধুরীসহ সংশ্লিষ্ট অনেকের কাছে জানা যায়, ‘গত শনিবার দুপুর ১টা ১০ মিনিটের দিকে প্রতারক চক্রের একজন ০১৯১০-৫৪১৯৩৯ নম্বর থেকে ফোন করে ডাবুয়া ইউপির এক দফাদার ও চৌকিদার সুভাষ চৌধুরীর মোবাইলে ফোন করেন। নিজেকে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগ বলে পরিচয় দেয়। এরপর সে জগন্নাথ হাটের মিষ্টি ঘরের সত্ত্বাধিকারী রাজু চৌধুরীর ফোন নম্বর দিতে বলেন। পরে দফাদার ও চৌকিদার প্রতারক ব্যক্তিটিকে সত্যি সত্যি ইউএনও মনে করে জগ্ননাথ মিষ্টি ঘরের দোকানে গিয়ে রাজু চৌধুরীর সঙ্গে (প্রতারক চক্রের সদস্যকে) মোবাইল ফোনে কথা বলিয়ে দেয়। পরে প্রতারক চক্রের বিভিন্ন হুমকি ধমকির ভয়ে ফাঁদে পড়ে ব্যবসায়ী রাজু চৌধুরী ০১৯১০-৫৪১৯৩৯ বিকাশ নম্বরে ৪০ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেয়।

এ ঘটনার পর ব্যবসায়ী রাজু চৌধুরী বিষয়টি চেয়ারম্যান আবদুর রহমান চৌধুরীকে অবহিত করেন। পরে স্থানীয় চেয়ারম্যান আবদুর রহমান চৌধুরী বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করেন। তিনি বিষয়টি শুনে ডাবুয়া ইউনিয়নের ওই দফাদার, চৌকিদার সুভাষ চৌধুরী ও ব্যবসায়ী রাজু চৌধুরীকে ডেকে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা ঘটনার কথা স্বীকার করেন। এ ব্যাপারে ব্যবসায়ী রাজু চৌধুরী উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবীর সোহাগকে লিখিতভাবে অভিযোগ করেন।’ 

এদিকে প্রতারিত ব্যবসায়ীর ছোট ভাই, রাউজান সরকারি কলেজের সামনের চড়ুই সওদাগর মিষ্টি ভান্ডারের মালিক রূপম চৌধুরী বলেন, ‘গত ১৫ দিন আগে চট্টগ্রাম শহরের ম্যাজিস্ট্রেট দাবি করে নানা ভয় হুমকি দেখিয়ে আমার কাছেও ২০ হাজার টাকা দাবি করে কথিত মোবাইল ফোন নম্বর থেকে। তখন আমার ব্যবসা-বাণিজ্য খারাপ থাকায় টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় প্রতারণা থেকে বেঁচে যাই। শেষ পর্যন্ত আমার বড় ভাই প্রতারণার ফাঁদে পড়ল।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা