kalerkantho

সোমবার  । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭। ৩ আগস্ট  ২০২০। ১২ জিলহজ ১৪৪১

আন্দোলনের মুখে ১০৫ দিন পর বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে রপ্তানি শুরু

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি   

৫ জুলাই, ২০২০ ২০:০২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আন্দোলনের মুখে ১০৫ দিন পর বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে রপ্তানি শুরু

অবশেষে আন্দোলনের মুখে ১০৫ দিন পর বেনাপোল-পেট্রাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানি শুরু হয়েছে। সেই সঙ্গে পাঁচ দিন বন্ধ থাকার পর স্বাভাবিক হয়েছে আমদানি কার্যক্রম। প্রথম দিনে রবিবার বিকেল সাড়ে ৫টায় গার্মেন্টসামগ্রী নিয়ে পাঁচটি বাংলাদেশি ট্রাক ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে প্রবেশ করে। এরপর আমদানি বাণিজ্য শুরু হয়। আগামীকাল ভারত থেকে শুধু কাঁচামালের কয়েকটি ট্রাক বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করবে। আমদানি-রপ্তানি চালু হওয়ায় বেনাপোলসহ পেট্রাপোল বন্দরে কর্মচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ মার্চ থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ হয়ে যায়। পরে দফায় দফায় বৈঠকের পর পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের নির্দেশে গত ৭ জুন থেকে সীমান্ত বাণিজ্য সচল হয়। এর পর থেকে ভারতীয় পণ্য বাংলাদেশে আসছে। কিন্ত বাংলাদেশি কোনো পণ্যের চালান ভারতে রপ্তানি হয়নি। বেনাপোলের বন্দর ব্যবহারকারীরা বলছেন, করোনা সংক্রমণের শঙ্কায় নিরাপত্তাজনিত কারণ দেখিয়ে ভারতীয়রা বাংলাদেশ থেকে কোনো রপ্তানি পণ্য গ্রহণ করেননি। ফলে আমদানি কার্যক্রম স্বাভাবিক থাকলেও ব্যাহত হচ্ছিল রপ্তানি। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছিলেন এ দেশের রপ্তানিকারকরা। বৈদেশিক আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছিল দেশ।

বাধ্য হয়ে রপ্তানি পণ্য না নেওয়ায় গত বুধবার (১ জুলাই) সকাল থেকে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে রপ্তানিকারকরা এক হয়ে বন্ধ করে দেয় আমদানি বাণিজ্য কার্যক্রম। এ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয় খোদ পশ্চিবঙ্গ রাজ্য সরকারের দপ্তরে। ভারতীয় ব্যবসায়ীরা চান আমদানি হলে রপ্তানি হবে না কেন। পরে শনিবার রাজ্য সরকারের নবান্নে এক জরুরি বৈঠকে রপ্তানির বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনার পর স্বাস্থ্যবিধি মেনে যে প্রক্রিয়ায় আমদানি হচ্ছে একই প্রক্রিয়ায় রপ্তানি চালু করার নির্দেশ দেওয়া হয়। পরে পেট্রাপোল বন্দর ও কাস্টমস কর্তৃপক্ষ রবিবার বিকেল থেকে রপ্তানি পণ্য নিতে আগ্রহ দেখায়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে  এদিন পাঁচটি গার্মেন্টসের পণ্যবাহী বাংলাদেশি ট্রাক পেট্রাপোল বন্দরে প্রবেশের অনুমতি দেয়। সময় স্বল্পতার কারণে এদিন বেশি ট্রাক পাঠানো যায়নি। তবে সোমবার সকাল থেকে দুদেশের মধ্যে আবারও আমদানি-রপ্তানি স্বাভাবিকভাবে চলবে বলে বন্দর সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান বলেন, ভারতীয় বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে একাধিকবার আলোচনা করেও রপ্তানি চালু করা যায়নি। রপ্তানিকারকরা আমদানি কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ায় অবশেষে টনক নড়ে ভারতীয় প্রশাসনসহ বন্দর ব্যবহারকারীদের। ভারতীয় সরকারের সিদ্ধান্তের পর আজ রবিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বেনাপোল বন্দর থেকে পাঁচ ট্রাক রপ্তানি পণ্য গ্রহণ করে ভারতীয় বন্দর কর্তৃপক্ষ। সেই সঙ্গে ওপারে যেসব পচনশীল পণ্য আটকে আছে, সেগুলো গ্রহণ করা হবে।

বেনাপোল বন্দরের উপপরিচালক (ট্রাফিক) মামুন কবির তরফদার জানান, দীর্ঘদিন পর আজ রবিবার বেনাপোল বন্দর দিয়ে পাঁচ ট্রাক পণ্য ভারতে রপ্তানি হয়েছে। আগামীকাল থেকে এ পথে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবে চলবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা