kalerkantho

শনিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৮ সফর ১৪৪২

৮ অপহরণকারী গ্রেপ্তার

ডিবি পরিচয়ে ব্যবসায়ীকে অপহরণ, উদ্ধার করল পুলিশ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি   

৪ জুলাই, ২০২০ ২১:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ডিবি পরিচয়ে ব্যবসায়ীকে অপহরণ, উদ্ধার করল পুলিশ

ভুয়া ডিবি পুলিশের দ্বারা অপহৃত ঠাকুরগাঁওয়ের ভুট্টা ব্যাবসায়ী জুয়েল রানাকে (২৮) বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় অপহরণকারী ৮ জন ভুয়া ডিবি পুলিশকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জুয়েল রানা ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা সালন্দর ইউনিয়নে চৌধুরীহাট এলাকার নেছার আলীর ছেলে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে আশরাফুল ইসলাম (২৭), একই জেলার মাদারগঞ্জ নিশ্চিন্তপুর এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে আলাল উদ্দিন (৩৫), কুড়িগ্রাম নাগেশ্বরী এলাকার মৃত লুৎফর রহমানের ছেলে হুমায়ুন কবির (৪৫), ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর বিদ্যাকোট এলাকার মৃত সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে দেলোয়ার হোসেন (৩২), একই জেলার আখাউড়া মনিঅন্ধ এলাকার মৃত নুরুল আমিনের ছেলে আল আমিন (৩৫), নোয়াখালি সেনবাগ পীইয়া এলাকার আব্দুল লতিফের ছেলে সোহাগ (৩২), রাজশাহী বেয়ালিয়া দারগা পাড়ার আশরাফ আলীর ছেলে সালাউদ্দীন (৩১) ও বগুড়া শিবগঞ্জ এলাকার মৃত জামাতউল্লাহ মন্ডলের ছেলে দেলোয়ার আলী (৪৫)। গ্রেপ্তারকৃতরা সকলেই আন্ত:জেলা অপহরণকারী ও ডাকাত দলের সদস্য। তারা ডিবি পুলিশ পরিচয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় অপহরণ ও ডাকাতি করে আসছিলো।

শনিবার বিকালে সাংবাদিকদের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ঠাকুরগাঁও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত (ওসি) তানভিরুল ইসলাম। ওসি জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় ঠাকুরগাঁও এগারো মাইল নামক স্থানের পেট্রোল পাম্পের সামনে থেকে ভুট্টা ব্যবসায়ী জুয়েল রানাকে অপহরণ করে মাইক্রোবাসে করে ঢাকার উদ্দ্যেশে রওনা দেয়। এসময় অপহরণকারীরা জুয়েলের ফোন থেকে তার মা আনজুমান আরা বেগমকে কল করে এবং ছেলেকে ফেরত পেতে হলে ১৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। অপহরণের কথা পুলিশকে জানালে ছেলেকে মেরে ফেলার হুমকিও দেয় অপহরণকারীরা।

তিনি আরো জানান, শুক্রবার রাতেই জুয়েলের মা আনজুমান আরা বেগম সদর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। পরে তথ্য ও প্রযুক্তি ব্যবহার করে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার সহযোগীতায় জুয়েলকে দিবাগত রাত ২টায় উদ্ধার করা হয় এবং মাইক্রোবাসচালক সহ আটজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতদের ঠাকুরগাঁওয়ে আনা হচ্ছে। এ ঘটনায় আরও কেউ জড়িত রয়েছে কিনা তা তদন্ত করে দেখছে পুলিশ। খুব শীঘ্রই এর সাথে জড়িত অন্যান্যদের আইনের আওতায় আনা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা