kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

নারায়ণগঞ্জে বাম গণতান্ত্রিক জোটের সড়ক অবরোধ

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

২ জুলাই, ২০২০ ২০:০৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নারায়ণগঞ্জে বাম গণতান্ত্রিক জোটের সড়ক অবরোধ

করোনা পরীক্ষার ফি নেওয়া বন্ধ করা, বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষা ও চিকিৎসা দেওয়া, স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতি-লুটপাট-অব্যবস্থাপনা বন্ধ করা, রাষ্ট্রায়ত্ত্ব পাটকলসমূহ চালু ও আধুনিকায়নের দাবিতে দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসাবে বাম গণতান্ত্রিক জোট নারায়ণগঞ্জ জেলা সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘণ্টাব্যাপি নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে এই অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন তারা। 

অবরোধ চলাকালে কয়েকদফা পুলিশ বাঁধা প্রদান করলেও বামজোট ১ ঘণ্টার অবরোধ কার্যক্রম অব্যাহত রাখে। অবরোধ কর্মসূচির শুরুতে প্রেস ক্লাবের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে বাম গণতান্ত্রিক জোট। নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক হাফিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বাসদ জেলার নির্বাহী ফোরামের সদস্য আবু নাঈম খান বিপ্লব, কমিউনিস্ট পার্টির নারায়ণগঞ্জ শহর শাখার সভাপতি আব্দুল হাই শরীফ, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির জেলার সাধারণ সম্পাদক আবু হাসান টিপু, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক তরিকুল সুজন, বিমল কান্তি দাস, সেলিম মাহমুদ, রাশিদা আক্তার, পপি রানী সরকার।

অবরোধে পুলিশী বাঁধা উপেক্ষা করে নেতৃবৃন্দ বলেন, করোনা নিয়ন্ত্রণে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন ব্যাপক পরীক্ষা করা এবং শনাক্তদের আলাদা করা। তা নিশ্চিতের জন্য দরকার পরীক্ষাকেন্দ্র বাড়ানো এবং বিনা পয়সায় পরীক্ষা করা। আমাদের আশেপাশের সমস্ত দেশে বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষা হলেও বাংলাদেশে করোনা পরীক্ষা ফি পরীক্ষা কেন্দ্রে ২০০ টাকা এবং বাসায় ৫০০ টাকা ১ জুলাই থেকে কার্যকর হয়েছে। সংখ্যাগরিষ্ঠ দরিদ্র মানুষের দেশে ফি নিয়ে পরীক্ষার সিদ্ধান্ত প্রমাণ করে যে সরকার করোনা নির্মূলে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার দায়িত্ব নিচ্ছে না। দেশে ব্যাপকভাবে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর তা নিয়ন্ত্রণে সরকার চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, ১ জুলাই থেকে দেশের ২৫ টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। লোকসানের বিভ্রান্তিকর যুক্তি হাজির করে সরকার গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের মাধ্যমে শ্রমিক চাকুরিচ্যূত করে পিপিপি মাধ্যমে বেসরকারি মালিকানায় পাটকলগুলো ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সরকার পাটকল লোকসানের কারণ যথাযথভাবে অনুসন্ধান করে ব্যবস্থা না নিয়ে একতরফাভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে বাস্তবে ব্যাক্তিমালিকদের লুটপাটের সুযোগ করে দিচ্ছে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকারের গণবিরোধী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বামজোটের শান্তিপূর্ণ অবরোধ কর্মসূচিতে পুলিশী বাঁধা ও নেতৃবৃন্দকে হেনস্তা করা সরকারের স্বৈরাচারী শাসনের বহিঃপ্রকাশ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা