kalerkantho

শুক্রবার । ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭। ১৪ আগস্ট ২০২০ । ২৩ জিলহজ ১৪৪১

ওএসডি কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিতে দুই স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে হঠাৎ বদলি!

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

২ জুলাই, ২০২০ ১৬:২১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ওএসডি কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিতে দুই স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে হঠাৎ বদলি!

বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) হিসেবে তিনি ছিলেন ডিজি অফিসে। এর মধ্যে তদবির করে বদলি হতে পারছিলেন না। অবশেষে করোনার এই ক্রান্তিলগ্নে ‘বিশেষ’ ব্যবস্থায় দুই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বদলি হলেও দায়িত্ব বুঝে নিতে দুই উপজেলায় দৌড়ঝাঁপ শুরু করেও পাননি দায়িত্ব। নজিরবিহীন এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহের নান্দাইল ও ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। ঈশ্বরগঞ্জের কর্মকর্তার বদলির আদেশ তিন দিনের মধ্যে বাতিল ও নান্দাইলে বিক্ষুব্ধ লোকজনের ক্ষোভের মুখে ওই কর্মকর্তা গত বুধবার যোগদান করতে পারেননি। গতকাল বৃহস্পতিবার তাঁকে আবারও জামালপুরের দেওয়াগঞ্জ উপজেলায় বদলি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, যোগদান করতে আসা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা হচ্ছেন ডা. ইশরাত জাহান। এর আগে তিনি বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) কর্মকর্তা হিসেবে ডিজির অফিসে (স্বাস্থ্য অধিদপ্তর) সংযুক্ত ছিলেন।

ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, গত ২২ জুন ডা. ইশরাত জাহান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা পদে যোগ দিয়ে দায়িত্ব না নিয়েই তিনি অফিস করতে থাকেন। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি যোগদান করা এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নুরুল হুদা খানকে জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলায় যোগ দিতে বলা হয়। 

জানা যায়, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা করোনাপ্রবণ এলাকা। হঠাৎ করে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বদলির আদেশ আসায় করোনা প্রতিরোধ কমিটির কাজকর্মে ব্যাঘাত ঘটে। তিন দিন পর (২৫ জুন) ডা. নুরুল হুদা খানের বদলির আদেশ বাতিল হয়। পরে তিনি ফের অফিস শুরু করেন। পরে ডা. ইশরাত জাহান নান্দাইল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চলে আসেন গত বুধবার। তিনি এখানে আসার আগে গত ২৯ জুন হঠাৎ করে বদলি হন নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ইকবাল আহমেদ নাসের। ডা. ইকবাল গত বছরের ২৩ নভেম্বর নান্দাইলে যোগদান করেন। তিনিও করোনা মোকাবেলায় ওয়ার্ড পর্যায়ে কমিটি করে কাজ করছিলেন। এর মধ্যে বদলির খবর শুনে ক্ষোভে ফেটে পড়েন স্বাস্থ্য ব্যবস্থপনা কমিটি ছাড়াও সংশ্লিষ্ট লোকজন। তাঁরা ডা. ইসরাত জাহানকে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ করেন।

এ ধরনের ঘটনায় ইসরাত জাহান বলেন, আমার বদলি করেছে ডিজি অফিস। এ অবস্থায় যোগ দিতে না দেওয়া এক ধরনের অন্যায় হয়েছে। আমি একজন সিনিয়র কর্মকর্তা হিসেবে কষ্ট পেয়েছি। এখন আমাকে দেওয়ানগঞ্জ বদলি করা হয়েছে। এটা এক ধরনের হয়রানি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ময়মনসিংহ জেলা সিভিল সার্জন ডা. এ বি এম মসিউল আলমককে ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে ময়মনসিংহ জেলা বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. আবুল কাশেম বলেন, এটা গতানুগতিক বদলি, তবে আমরা এ বিষয়ে আগে অবগত ছিলাম না। বদলির পর কাগজপত্র পেয়েছি।

এ ব্যাপারে ময়মনসিংহ-৯ নান্দাইল আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আনোয়ারুর আবেদিন খান তুহিন বলেন, আমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সারা দেশের মধ্যে প্রতি মাসেই স্বাস্থ্যসেবা কমিটির সভা হয়। এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দু-দুবার শ্রেষ্ঠ হয়েছে। এ অবস্থায় এত দ্রুত সময়ের মধ্যে চলমান কার্যক্রমের মধ্যে স্বাস্থ্য কর্মকর্তকে বদলি মেনে নেওয়া যায় না। এটা কোনো উদ্দেশ্যে করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা