kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৫ আষাঢ় ১৪২৭। ৯ জুলাই ২০২০। ১৭ জিলকদ ১৪৪১

দিনে দুইবার ডুবছে তিন শতাধিক পরিবার

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি   

৪ জুন, ২০২০ ১৬:০৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দিনে দুইবার ডুবছে তিন শতাধিক পরিবার

এখনও দিনে দুইবার ডুবছে বগী-গাবতলার তিন শতাধিক পরিবার। ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে পূর্ণিমার প্রভাবে গত দুই দিন ধরে বলেশ্বর নদের জোয়ারের পানি হু হু করে ঢুকে প্লাবিত হচ্ছে গ্রাম। বসতঘরের মধ্যে হাঁটু পানি। রান্না-বান্না বন্ধ। দুর্ভোগের আর শেষ নেই ওই পরিবারগুলোর। 

ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের পর ২৭ মে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক বাগেরহাটের শরণখোলার পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৩৫/১ পোল্ডারের বেড়িবাঁধের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি বগী-গাবতলার দুই কিলোমিটার ভেঙে যাওয়া বাঁধ সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে দ্রুত মেরামতের আশ্বাস দেন। এর পর প্রায় ১৫ দিন অতিবাহিত হলেও সেখানে রিং বেড়িবাঁধের কাজ শুরু না হওয়ায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ জন্ম নিয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বগী-গাবতলা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ভাঙা বাঁধা দিয়ে পানি ঢুকে ঘরবাড়ি প্লাবিত হচ্ছে। এ সময় বগী সাতঘর এলাকার আবু সাইদ হাওলাদার, মাহাবুল হাওলাদার, ফুলমিয়া হাওলাদার, কালাম হাওলাদার, গাবতলা এলাকার কামাল হাওলাদার, মোহাম্মদ খানসহ ভুত্তভোগীরা জানান, প্রতিদিন দুইবার জোয়ারের পানিতে তাদের ডুবতে হচ্ছে। ঘরবাড়িতে থাকার কোনো উপায় নেই। ঘরের মধ্যে পানি উঠে যায়। চুলায় পানি জমে থাকায় অনেকের বাড়িতে রান্না-বান্না হয় না। 

তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মন্ত্রী এসে বাঁধের আশ্বাস দিয়ে গেছেন। কিন্তু কাজের কোনো খবর নেই। এখন পানিতে ডুবে মরতে হচ্ছে আমাদের। এভাবে কোনো মানুষ বসা করতে পারে?  

বগী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. রিয়াদুল পঞ্চায়েত ও দক্ষিণ সাউথখালী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. জাকির হোসেন জানান, তাদের দুই ওয়ার্ডের নদীসংলগ্ন তিন শতাধিক পরিবার ভোগান্তিতে পড়েছে। জোয়ারের পানিতে তাদের ঘরবাড়ি তলিয়ে যায়। আম্ফানের পর এ পর্যন্ত দু-তিন দফা তলিয়েছে। ভাঙন থেকে জোয়ারের পানি ঢুকে এলাকাটি মানুষ বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বলেশ্বর পারের সহস্রাধিক মানুষ আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। তারা দ্রুত বাঁধের কাজ শুরুর দাবি জানান।

শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সরদার মোস্তফা শাহিন জানান, বগী-গাবতলার ওই দুই কিলোমিটার এলাকা সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে রিং বেড়িবাঁধ দেওয়ার কথা। এর মধ্যে তারা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় প্রাথমিক জরিপ করেছেন। শিগগিরই কাজ শুরু হতে পারে।

সেনাবাহিনীর একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, শরণখোলার সাউথখালী ইউনিয়নের বলেশ্বর নদের ভাঙনকবলিত বগী-গাবতলা এলাকার দুই কিলোমিটারে রিংবাঁধ নির্মাণের জন্য সরকারি আদেশ পাওয়া গেছে। সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে সেখানে দ্রুত কাজ শুরু হবে বলে জানায় সূত্রটি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা