kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৩ আষাঢ় ১৪২৭। ৭ জুলাই ২০২০। ১৫ জিলকদ  ১৪৪১

রায়পুরে প্রতিবেশীদের পিটুনিতে আহত বৃদ্ধার মৃত্যু

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

৪ জুন, ২০২০ ০০:৪১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রায়পুরে প্রতিবেশীদের পিটুনিতে আহত বৃদ্ধার মৃত্যু

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে প্রতিবেশীদের পিটুনির ১০ দিন পর আহত বৃদ্ধা নুরজাহান বেগম (৫৫) মারা গেছেন। অবস্থার অবনতি ঘটলে বুধবার (৩ জুন) বিকেলে তাকে লক্ষ্মীপুর সিটি হসপিটালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়। এসময় কর্তব্যরত চিকিৎসক ওই বৃদ্ধাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় রাতে নিহত নুরজাহানের মেয়ে মায়া আক্তার ১০ জনের নামে রায়পুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। এতে প্রধান অভিযুক্ত করা হয় এমরান হোসেনকে। তিনি উপজেলার বামনী ইউনিয়নের কাঞ্চনপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে।

অভিযোগ রয়েছে, পিটুনির ঘটনা সালিসে মিমাংসা করে দেওয়ার নামে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আনছার উল্যা আহতদের হাসপাতাল থেকে বের করে দিতে চাপ প্রয়োগ করেছিলেন। এতে তারা সুস্থ না হয়েই বাড়িতে চলে যায়। একপর্যায়ে নুরজাহানের শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখা দেয়। বুধবার বিকেলে তাকে লক্ষ্মীপুর সিটি হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

জানা গেছে, নুরজাহানদের সঙ্গে একই বাড়ির এমরানদের জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। গত ২৪ মে শিশুদের একটি তুচ্ছ ঘটনায় নুরজাহানের মেয়ে মায়াকে মারধর করে এমরান। এ ঘটনায় মায়া বামনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছে বিচার চাইতে যায়। এতে এমরান আরো ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। একপর্যায়ে তিনি নুরজাহানকে পিটুনি দেয়। 

এসময় তাকে বাঁচাতে এলে রড দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে মেয়ে মায়া ও পরিবারের তিনজনকে আহত করা হয়। ওইদিনই তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বিষয়টি সালিসে মিমাংসার কথা বলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাবিত করে গুরুতর আহত নুরজাহানকে সোমবার (১ জুন) হাসপাতাল থেকে বাড়ি নিয়ে যায়।

নিহতের স্বজনদের দাবি, জমি নিয়ে বিরোধের ঘটনা নিয়েই এমরান ও তার লোকজন নুরজাহানকে বেদম পিটিয়েছে। মাথায় ও শরীরে বিভিন্ন অংশে আঘাত পেয়ে নুরজাহান মারা গেছেন। তারা এ হত্যার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছেন।

এ ব্যাপারে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আনছার উল্যার বক্তব্য জানা যায়নি। তার ঘনিষ্ট একটি সূত্র দাবি করছেন, বিষয়টি এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলার স্বার্থে মিমাংসা করে দেওয়ার কথা ছিল। হাসপাতালে কাউকে কোনো চাপ দেওয়া হয়নি।

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোতা মিয়া জানান, এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা