kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৩ আষাঢ় ১৪২৭। ৭ জুলাই ২০২০। ১৫ জিলকদ  ১৪৪১

১১ বছর ধরে মুক্তিযোদ্ধার ভাতা আত্মসাত

কালের কণ্ঠের সংবাদে তদন্ত কমিটি গঠন

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি   

৩ জুন, ২০২০ ১৭:০৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কালের কণ্ঠের সংবাদে তদন্ত কমিটি গঠন

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা নাঈমুল্লার স্ত্রীর মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ও ব্যাংকের চেক বইসহ সব কাগজপত্র কুক্ষিগত করে রেখে ১১ বছর ধরে ভাতা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক। বুধবার দৈনিক কালের কণ্ঠে 'ভাতা আত্মসাত ১১ বছর ধরে' শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াসমিন নাহার রুমাকে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তিন সদস্য কমিটি গঠন করে এক সপ্তাহের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

২০০৯ সাল থেকে মুক্তিযোদ্ধা নাঈমুল্লার স্ত্রী মোকসেদা বেগমের ভাতা ও চেক বই জিম্মি করে ভয় দেখিয়ে মো. জায়ফর আলী নামের আরেক মুক্তিযোদ্ধা এই ঘটনা ঘটাচ্ছেন। বিভিন্ন সময়ে জায়ফর আলী ঘর বরাদ্দ, ব্যাংক লোন উত্তোলন, সনদ উত্তোলনসহ নানা কথা বলে আরো প্রায় ২ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন নিঃস্ব মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীর কাছ থেকে। প্রতিবার ভাতা তুলে মো. জায়ফর আলী আর সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক সভাপতি আব্দুল মজিদসহ দুজন ওই নারীর ভাতা অর্ধেক নিয়ে যান বলে অভিযোগ করেন মোকসেদা বেগম। মোকসেদার মাধ্যমে ভাতা উত্তোলন করে টাকা হাতিয়ে নিয়ে তারা অর্ধেক ভাতা রেখে তাকে বিদায় করে বরাবরের মতো ভাতা ও চেকবই তার কাছে রেখে দেন। গত ১১ বছর ধরে এভাবেই সহজ-সরল ওই নারীকে ঠকিয়ে আসছেন তারা।

এসংক্রান্ত সংবাদটি সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদের দৃষ্টিগোচর হলে তিনি তাৎক্ষণিকভাবে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাগ্রহণে তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করেছেন।

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ বলেন, কালের কণ্ঠের সংবাদে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। এই গর্হিত কাজে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা