kalerkantho

রবিবার । ২৮ আষাঢ় ১৪২৭। ১২ জুলাই ২০২০। ২০ জিলকদ ১৪৪১

ময়মনসিংহ সার্কিট হাউস মাঠে দেয়াল নির্মাণের প্রতিবাদে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ   

৩ জুন, ২০২০ ১৫:৪৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ময়মনসিংহ সার্কিট হাউস মাঠে দেয়াল নির্মাণের প্রতিবাদে মানববন্ধন

ময়মনসিংহের বিশাল এবং ঐতিহাসিক সার্কিট হাউস মাঠের চারিদিকে দেয়াল নির্মাণ ওয়াকওয়ে তৈরি এবং সৌন্দর্য বর্ধণের বিষয়টি নিয়ে গত দুইদিন ধরে ময়মনসিংহে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় চলছে। এবার এই কাজের বিরোধিতা করে মানবন্ধনও করেছে স্থানীয় সচেতন মহল।

গত দুই দিন ধরে স্থানীয় ক্রীড়ানুরাগী, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিবর্গ, সুধী মহল এমনকি খোদ সরকারি দলেরও একাধিক নেতা মাঠের এমন উন্নয়ণের বিষয়টিকে অপ্রয়োজনীয় বলে মন্তব্য করেছেন। তাদের যুক্তি বিশাল এই মাঠটি এতে তার প্রাকৃতিক চেহারা হারাবে। খেলাধূলার পরিবর্তে মাঠটি রূপ নিবে পার্কে। সরকারের অর্থও এখানে অপচয় হবে। তবে একই কাজের অংশ হিসেবে বঙ্গবন্ধুর পরিবারের মূর‍্যাল তৈরি বিষয়ে তারা সমর্থন জানিয়েছেন। 

এদিকে আজ দুপুরে মাঠের এমন উন্নয়ণ কাজ বিশেষ করে চারিদিকে দেয়াল নির্মাণের বিরোধিতা করে মানববন্ধন করেছেন ময়মনসিংহের বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। বিষয়টির বিরোধিতা করে ময়মনসিংহে বড় ধরনের আন্দোলনের সম্ভাবনাও আছে বলে অনেকে ধারণা করছেন।

রফিকুল ইসলাম রতন, কবি স্বাধীন চৌধুরী, মুক্তিযোদ্বা বিমল পাল, সাংবাদিক প্রদীপ ভৌমিক, কবি শামীম আশরাফ সহ বিভিন্ন ক্রীড়ানুরাগী সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা এতে যোগ দেন। মানববন্ধন কর্মসূচির অন্যতম উদ্যোক্তা রফিকুল ইসলাম রতন বলেন, সবার আগে প্রয়োজন মাঠের উন্নয়ন। কিন্তু তা না করে সৌন্দর্য্য বর্ধণের নামে দেয়াল তৈরি হলে মাঠটি তার বৈশিষ্ট হারাবে। তিনি বলেন খেলার মাঠ, খেলার মাঠই থাকুক। এঠিকে পার্ক বানানোর দরকার নাই।

আবার অনেকে এমন উন্নয়ণ কাজকে সমর্থন দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দিচ্ছেন। তাদের যুক্তি হলো ময়মনসিংহের এমনিতেই তেমন উন্নয়ন হয় না। এখন বিরোধিতা করে একটি উন্নয়ন কাজ বন্ধ করা সঠিক নয়।

সদ্য বিদায়ী বিভাগীয় কমিশনার খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান দায়িত্বে থাকাকালে তার বেশ কিছু প্রশংসনীয় উদ্যোগের সাথে এ মাঠটিরও সৌন্দর্য বর্ধণের পরিকল্পনা করেন। একই সাথে মাঠের এক প্রান্তে বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের সদস্যদের মূর‍্যাল তৈরিরও উদ্যোগ নেন। প্রায় সাড়ে ৬ কোটি টাকা ব্যায়ে এ দুটি প্রকল্প বাস্তবায়নে কিছু টাকা এর মাঝে বরাদ্দও এসেছে। গত ১ জুন তিনি কাজটির উদ্বোধন করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা