kalerkantho

শনিবার । ২০ আষাঢ় ১৪২৭। ৪ জুলাই ২০২০। ১২ জিলকদ  ১৪৪১

মেয়ের সাফল্য দেখে যেতে পারেননি মা

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি   

৩ জুন, ২০২০ ১৩:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মেয়ের সাফল্য দেখে যেতে পারেননি মা

মাকে কবরে রেখে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিল ফাতেমা সরকার নিহা। জিপিএ ৫ পেয়েছে নিহা। তার সাফল্যে খুশি পরিবারসহ বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। কিন্তু আনন্দর মাঝে সবার মনটা খারাপ। নিহা আনন্দের দিনেও কেঁদে কেঁদে বুক ভাসিয়েছে। কারণ পড়াশোনার জন্য যিনি সব সময় অনুপ্রেরণা দিতেন, নিহার সেই মা মেয়ের সাফল্য দেখে যেতে পারলেন না। তাই এই আক্ষেপ নিয়ে পরিবারের সদস্যদের মাঝেও এখন বিষাদের ছায়া। 

ফাতেমা সরকার নিহা বগুড়ার ধুনট উপজেলার জোড়খালী গ্রামের হেলাল উদ্দিন সরকারের মেয়ে। তার মা হোসনেয়ারা পারভীন ধুনট উপজেলা উপসহকারী পাট উন্নয়ন কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি ১৩ ফেব্রুয়ারি হৃদরোগে মানা যান। তখন মায়ের শোকে বারবার সংজ্ঞা হারাচ্ছিল নিহা। তার পরীক্ষায় বসার মতো মানসিক ও শারীরিক শক্তি ছিল না। কিন্তু পরিবার ও শিক্ষকদের চেষ্টায় নিহা সে দিন ধুনট সরকারি এনইউ মডেল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষায় বসেছিল।  

উপজেলার গোসাইবাড়ি এএ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান শাখায় নিহা পরীক্ষায় অংশ নেয়। বিদ্যালয়ের প্রতিটি শ্রেণিতে বরাবরই ভালো ফলাফল করত। এসএসসিতে তার সাফল্য নজরকাড়া হবে বলেই প্রত্যেকে আশা করেছিলেন। তার সাফল্যে ঘরে-বাইরে প্রশংসা পাচ্ছে। মা হারানোর বেদনা নিয়ে নিহার কাছে এখন সামনের দিন গুলোতে আরো ভালো ফলাফল করাই চ্যালেঞ্জ। স্বপ্নময়ী মায়ের ইচ্ছে ছিল নিহাকে ডাক্তারি পড়ানোর। প্রয়াত মায়ের সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে এখন নিহার সাফল্যের দিকে তাকিয়ে রয়েছেন সকলেই।

ফাতেমা সরকার নিহা বলে, আমি কী পরীক্ষা দিয়েছিলাম নিজেরই মনে নেই। তারপরও আশানুরূপ ফলাফল হয়েছে। কিন্ত পরীক্ষার ভালো ফলাফল আমার মাকে দেখাতে পারলাম না। মা সব সময় চাইতেন আমি যেন ভালো ফলাফল করি। এসএসসি পরীক্ষার ভালো ফলাফল মা দেখে যেতে না পারার কষ্ট আমার সারা জীবন থেকে যাবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা