kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ আষাঢ় ১৪২৭। ২ জুলাই ২০২০। ১০ জিলকদ  ১৪৪১

নবীনগরে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তার তালিকায় ফের অনিয়মের অভিযোগ!

নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি   

৩ জুন, ২০২০ ০৮:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নবীনগরে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তার তালিকায় ফের অনিয়মের অভিযোগ!

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার বীরগাঁও ইউনিয়নের পর এবার লাউর ফতেপুর ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর এককালীন ২৫০০ টাকা প্রদানের তালিকায় অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবদুল্লাহ আল মাসুম গতকাল মঙ্গলবার জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেছেন। ওই আবেদনের অনুলিপি চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছেও পাঠানো হয়েছে। 

প্রাপ্ত ওই আবেদনে অভিযোগ করা হয়েছে, লাউর ফতেপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় থেকে নেওয়া প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা প্রদানের ওই তালিকাটিতে নানা অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির সুস্পষ্ট প্রমাণাদি রয়েছে।

আবেদনে অভিযোগ করা হয়, চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় একাধিক মেম্বার ওই তালিকায় প্রকৃত দরিদ্রদের বদলে নিজেদের আত্মীয় স্বজন ও বিত্তশালীদের নাম অন্তর্ভুক্ত করেন। এদের মধ্যে ১ নম্বর ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার পূর্ণিমা বণিক ও ২ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার জামাল মিয়া নিজেদের বাবা, মা, ছেলে, মেয়ে পুত্রবধূসহ নিকট আত্মীয় ও স্বজনদের নাম বেশী তালিকাভুক্ত করেন। এছাড়া চেয়ারম্যান সুস্থ ও স্বচ্ছল লোকদেরকে দরিদ্র দেখিয়ে প্রতিবন্ধী ভাতাসহ আর্থিক সহায়তার তালিকায় নাম তুলেছেন।

এ বিষয়ে আবেদনকারী আবদুল্লাহ আল মাসুম বলেন, 'আমি খুব কমই অভিযোগ করেছি। সুষ্ঠ তদন্ত হলে লাউর ফকেপুর ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তার তালিকায় ব্যাপক অনিয়ম ধরা পড়বে।

ইউপি মেম্বার জামাল মিয়া ও পূর্ণিমা বণিক অভিযোগ স্বীকার করে বলেন, 'নিজের ঘরের আত্মীয় স্বজন একেবারেই দরিদ্র বিধায় তাদের নাম তালিকায় দিয়েছি। তবে তারা অসহায় হওয়ার পরও যদি আমাদের আত্মীয় হওয়ার কারণে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা না পান তাহলে সেইসব নাম কেটে দেওয়া হোক।'

এ প্রসঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ বলেন, 'আমি এখন খুবই অসুস্থ। তবে বিত্তশালীদের নাম তালিকায় ওঠারতো প্রশ্নই উঠে না। এসব অসত্য অভিযোগ। একটি কুচক্রী মহল এসব অপপ্রচার করছে।'

এ ব্যাপারে গতকাল রাতে নবীনগরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম কালের কণ্ঠকে বলেন, 'এখনও কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। পেলে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'

প্রসঙ্গত, গত ১৯ মে উপজেলার বীরগাঁও ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তার তালিকায় স্বজন ও বিত্তশালীদের নাম অন্তর্ভুক্তি নিয়ে কালের কণ্ঠে পরপর দুটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। পরে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে তদন্ত শেষে এর সত্যতা পাওয়ার পর বীরগাঁওয়ের চেয়ারম্যান কবির আহমেদ ও মেম্বার তাহের মিয়াকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা