kalerkantho

বুধবার । ৩১ আষাঢ় ১৪২৭। ১৫ জুলাই ২০২০। ২৩ জিলকদ ১৪৪১

আহত ভিকটিমের পরিবার

হাটহাজারীতে বলাৎকারের অভিযোগে সালিশী বৈঠকে হামলা

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

৩০ মে, ২০২০ ০৬:৫৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হাটহাজারীতে বলাৎকারের অভিযোগে সালিশী বৈঠকে হামলা

চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার ধলই ইউনিয়নের কাটিরহাট এলাকায় এক শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগে সালিশী বৈঠকে হামলার ঘটনা ঘটেছে। অভিযুক্ত বলাৎকারকারী ও তার পরিবারের সদস্যরা এ হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানা গেছে। হামলায় ভিকটিমের মামাসহ গুরুতর আহত হয়েছেন মামুন নামে স্থানীয় এক যুবক। বুধবার রাতে হামলার ঘটনাটি ঘটেছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার থানায় অভিযোগ করেছে ভিকটিমের পরিবার।

সূত্রে জান গেছে, গত ২৩মে উপজেলার পূর্ব ধলই কাটিরহাট মুয়াজ তালুকদার বাড়ির ফকির আহাম্মদের পুত্র মোঃ সাইফুল ইসলাম (২৭) এর বিরুদ্ধে এক শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগ উঠে। এরই প্রেক্ষিতে বুধবার (২৭ মে) উভয় পক্ষ সালিশে বৈঠকের আয়োজন করে। কিন্তু বৈঠকের শুরুতেই অভিযুক্ত সাইফুল ও তার পরিবারের সদস্যরা ভিকটিমের পরিবারের ওপর হামলা চালায়। এ সময় ভিকটিমের চাচা ইকবাল ও স্থানীয় যুবক মামুন গুরুতর আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে ফটিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলেও মামুনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে চমেক রেফার করে কর্তব্যরত চিকিৎসক। চিকিৎসা শেষে মামুনকে বাড়িতে নিয়ে আসলেও এখনো আশঙ্কামুক্ত নন বলে জানান তার পরিবার।

পরে ভিকটিমের মা বাদি হয়ে হাটহাজারী মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এদিকে বলাৎকার ও হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে ভিকটিমের মা সাংবাদিকদের জানান, শিশুর ওপর এভাবে যৌন নির্যাতন করে আবার সালিশে হামলার ঘটনায় আমরা হতাশ, ক্ষুব্ধ। আমরা এ ঘটনায় হাটহাজারী মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি, কিন্তু এখনও মামলা হয়নি। পরিবারের পক্ষ থেকে আমরা এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তি দাবী জানাচ্ছি।

অভিযুক্ত সাইফুল আগেও এমন ঘৃণ্য কাজ করেছেন বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক এলাকাবাসি সাংবাদিকদের জানান। 

স্থানীয় ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন বলেন, হামলার পরই আমি ঘটনা জেনেছি। এক শিশুকে সাইফুল নামে এক ব্যক্তি যৌন নির্যাতনের কারনে তারা বৈঠকে বসেছিল। থানা এখনো পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় আক্ষেপ করে তিনি বলেন, এ ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনায় দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে দোষিরা পার পেয়ে যাবে। তাই দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাচ্ছি পুলিশ প্রশাসনের প্রতি।

হাটহাজারী মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রাজীব শর্ম্মা গতরাত ১০টায় ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে এ প্রতিনিধিকে জানান, আমরা এখনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা