kalerkantho

শনিবার । ২৭ আষাঢ় ১৪২৭। ১১ জুলাই ২০২০। ১৯ জিলকদ ১৪৪১

পীরগাছায় কালবৈশাখী ঝড়ে ফসলের ক্ষতি

পীরগাছা (রংপুর) প্রতিনিধি   

২৫ মে, ২০২০ ১৫:৩৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পীরগাছায় কালবৈশাখী ঝড়ে ফসলের ক্ষতি

ঈদের আগের রাতে রংপুরের পীরগাছায় কালবৈশাখী ঝড়ে বোরো ধান, ভুট্টা, কলা, আম ও লিচুসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল রবিবার রাত ১১ টার দিকে কালবৈশাখী ঝড় শুরু হয়। ভোর পর্যন্ত কয়েক দফা ঝড় বয়ে যায়। এতে বিভিন্ন স্থানে গাছপালা উপড়ে পড়ে ও কাঁচা ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ঝড় শুরুর পর থেকেই বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। উপজেলার বেশীর ভাগ এলাকায় বিঘ্নিত মোবাইল সেবাও। পাশাপাশি মোবাইল ইন্টারনেট সেবা বন্ধ থাকায় চরম বিড়ম্বনায় পড়েছে গ্রাহকরা। আজ সোমবার দুপুরে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করা সম্ভব হয়নি।

কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় পীরগাছায় ধান কাটা মাড়াই দেরিতে শুরু হয়েছে। শ্রমিক সংকটের কারণে অনেক কৃষক ধান কাটতে পারেনি। কিন্তু ঝড়ো বাতাশে বেশীর ভাগ ক্ষেতের ফসল মাটিতে শুয়ে পড়েছে। নিচু এলাকায় ফসল পানির নিচে তলিয়ে গেছে। বেশিরভাগ গাছের আম ও লিচু ঝড়ে পড়েছে। বৃষ্টি ও ঝড়ো বাতাসে ভুট্টা ক্ষেতসহ রবি শস্যের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

কান্দি ইউনিয়নের আব্দুস ছালাম কালের কণ্ঠকে বলেন, বিদ্যুৎ চলে গেলেই কান্দিসহ আশেপাশের এলাকায় মোবাইল নেটওয়ার্ক উধাও হয়। ফলে মোবাইলে কথা বলা ও ইন্টারনেট সেবা বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘদিন থেকে এমন অবস্থা চললেও কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ পীরগাছা জোনাল অফিসের ডিজিএম আব্দুল জলিল কালের কণ্ঠকে  বলেন, কালবৈশাখী ঝড়ের কারণে বিভিন্ন স্থানে বৈদ্যুতিক লাইনে সমস্যা দেখা দিয়েছে। দ্রুত লাইন চালু করতে কাজ চলছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শামীমুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, উপজেলায় এখন পর্যন্ত প্রায় ৪০ শতাংশ জমির ধান কাটা হয়েছে। কৃষকদের দ্রুত ধান কাটতে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। ঝড়ে ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা