kalerkantho

বুধবার । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৭  মে ২০২০। ৩ শাওয়াল ১৪৪১

করোনার দুঃসময়ে সরিষাবাড়ির ৩ শতাধিক পরিবারের পাশে ‘দীপ্তিময় অক্টাল’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ মে, ২০২০ ২২:৩৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনার দুঃসময়ে সরিষাবাড়ির ৩ শতাধিক পরিবারের পাশে ‘দীপ্তিময় অক্টাল’

অসহায় মানুষের পাশে কাজ করে যাচ্ছে 'দীপ্তিময় অক্টাল।' জামালপুরের সরিষাবাড়ীস্থ এ সংগঠনটির উদ্যোগে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে করোনায় কর্মহীন ও অসহায় তিন শতাধিক মানুষকে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে খাদ্যসামগ্রী উপহার দেয়া হয়েছে।

সরিষাবাড়ী উপজেলার আরামনগর বাজার, আরামনগর গ্রাম, সাতপোয়া, মূলবাড়ি, পূর্ব মূলবাড়ি, ময়ান মাস্টারবাড়ি, ব্যাপারিপাড়া, হাজিবাড়ি, বলারদিয়ার, বগাড়পার, পিংনা, বয়ড়া, হাজিপুর, বাগমারাসহ বিভিন্ন স্থানে খাদ্যসামগ্রী উপহার দেয়া হয়।

খাদ্যসামগ্রী হিসেবে ছিল চাল,আলু, মসুর ডাল, তেল , সেমাই, চিনি, সাবান ও স্যুপ। বিভিন্ন গ্রামের প্রতিনিধির মাধ্যমে খাদ্যসামগ্রীগুলো বাড়িবাড়ি পৌঁছে দেয়া হয়।
 
'দীপ্তিময় অক্টাল'-এর সভাপতি মো. রবিউল ইসলাম খোকন ও সাধারণ সম্পাদক মো. মাহমুদুল হাসান সাদীর তত্ত্বাবধানে বিতরণ কাজের কো-অর্ডিনেটর ছিলেন সাবেক সভাপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান জুয়েল।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন দীপ্তিময় অক্টালের সদস্য মো. সমাজ ইমরান, মাসুদুর রহমান মিলন, রকিবুল ইসলাম রবিন, মোহাম্মদ আলী শান্ত প্রমুখ।

'দীপ্তিময় অক্টাল'-এর সভাপতি মো. রবিউল ইসলাম খোকন জানান, সরিষাবাড়ীর একঝাঁক মেধাবী ও প্রতিশ্রুতিশীল তরুণের হাতে গড়া স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “দীপ্তিময় অক্টাল”। এটি ২০০৩ সাল থেকে বিভিন্ন সামাজিক কাজের সাথে জড়িত। এর অংশ হিসেবে সংগঠনের সদস্যদের নিজস্ব অর্থায়নে অসহায়দের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী উপহার দেয়া হল।

তিনি বলেন, 'দীপ্তিময় অক্টাল'-এর প্রতিটি সদস্য দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। খাদ্য সহায়তার পেছনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যারা কাজ করে গেছেন সবাইকে তিনি ধন্যবাদসহ পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানান।

সংগঠনটির উদ্যোক্তারা জানান, প্রায় ১৭ বছর যাবৎ সরিষাবাড়িতে দীপ্তিময় অক্টাল তাদের সেচ্ছাসেবার কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ভিন্ন ভিন্ন ধরণের কাজকর্মের কারনে ইতিমধ্যে সরিষাবাড়িতে সর্বস্তরের মানুষের কাছে আস্থার এক বিকল্পনাম। এদের উল্লেখযোগ্য কার্যক্রমের ভিতরে ছিলো সামাজিক ঐকমত্যর জন্য ইভটিজিং বিরোধী গনজাগরন কার্যক্রম, সংঘাত নয় শান্তি এবং মনোঃবিকাশ আন্দোলন।

এখনো পর্যন্ত সংগঠনটির যে কোন কার্যক্রম সদস্যদের ব্যক্তি চাঁদা কিংবা শুভাকাঙ্ক্ষীদের চাঁদাতেই পরিচালিত হয়। তবে যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান চাইলেই তাদের যে কোন কার্যক্রমে যুক্ত হতে পারেন কিংবা সহায়তা করতে পারেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা