kalerkantho

বুধবার । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৭  মে ২০২০। ৩ শাওয়াল ১৪৪১

ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করলেন তারা

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

২৩ মে, ২০২০ ১৮:২৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করলেন তারা

কেউ স্কুল-কলেজের শিক্ষক, কেউবা সরকারি বা বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত। আবার কেউ ব্যাংকার ছাড়ারও কোনো কোনো কর্মে নিয়োজিত আছেন দেশের বিভিন্ন জায়গায়। এ অবস্থায় করোনাভাইরাসের এই ক্রান্তি লগ্নে নিজেরাই তাদের বেতন ভাতার টাকা জমিয়ে ফান্ড তৈরি করে নাম দেন ‘করোনা তহবিল’। তা থেকেই ৪৩০ জন অসহায়, দরিদ্র ও কর্মহীন এলাকার মানুষদের মাঝে আর্থিক সহায়তা দিয়ে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করেছেন।

আজ শনিবার দুপুরে এ ধরনের ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার বীর বেতাগৈর ইউনিয়নের হাজি ছফির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে।

জানা যায়, ওই ইউনিয়নে বসবাসরত দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন ভাবে কর্মরতরা নিজেরাই তাদের অর্থ জমিয়ে ঈদ উপলক্ষে ৪৩০ জনের মধ্যে বিতরণ করেন ৫০০ টাকা করে। স্থানীয় হাজি ছফির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রত্যেকের হাতে তুলে দেওয়া হয় একটি খাম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন, নান্দাইল শহীদ স্মৃতি আদর্শ সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আবুল কাশেম লাভলু, ময়মনসিংহ ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সহসভাপতি আসাদুজ্জামান, হাজী ছফির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুছ ছাত্তার, স্বেচ্ছাসেবক আশরাফুল ইসলাম জনি, মাহবুবুল আলম সুমন।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালিনায় ছিলেন ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদালয় উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হাসনাত জামান সবুজ। অন্যদিকে অনুষ্ঠানটি সফল করতে যারা অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন তারা হলেন সূরুজ আলী ভিপি, ডেপুটি সেলস ম্যানেজার আজাহারুল ইসলাম খান, দেলোয়ার হোসেন সুজন, হাসনাত জামান সবুজ, খাইরুল ইসলাম পলাশ, বিল্লাল মাহমুদ মানিক, শওকত আলী, আশরাফুল ইসলাম, মাহবুবুল আলম সুমন, কামরুল হাসান ফরহাদ ও আনোয়ার হোসেন রুবেল।

আর্থিক সাহায্য পেয়ে খুশি হয়ে জাহের বানু (৮০) ও সরফত আলী (৭০) বলেন, আমরারে ডাইক্যা আইন্যা যে সেমাই-চিনির টেহা দিছে এইডাই অনেক বড় আনন্দ। আল্লাহ তাদের হেফাজত করুন।

অর্থ দিয়ে যারা সহযোগিতা করেছেন তারা বলেন, এটা দিয়ে আমাদের যাত্রা শুরু হলো। পর্যায়ক্রমে আরো অসহায়দের খোঁজে বের করে তাদেরকেও সহযোগিতা করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা