kalerkantho

বুধবার । ৯ আষাঢ় ১৪২৮। ২৩ জুন ২০২১। ১১ জিলকদ ১৪৪২

নোবিপ্রবির আর্থিক সঙ্কটে পড়া ৯০ শিক্ষার্থী পেলেন উপহার

নোবিপ্রবি প্রতিনিধি    

২৬ এপ্রিল, ২০২০ ০৮:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নোবিপ্রবির আর্থিক সঙ্কটে পড়া ৯০ শিক্ষার্থী পেলেন উপহার

বিশ্বব্যাপী মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। বাদ যায়নি বাংলাদেশও। করোনা ঠেকাতে এরইমধ্যে দেশটির বিভিন্ন জেলা-উপজেলা, ইউনিয়ন, গ্রাম লকডাউন করা হয়েছে। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। বন্ধ রয়েছে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ও (নোবিপ্রবি)। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়টির যেসব শিক্ষার্থী টিউশনি করিয়ে পড়াশোনার খরচ ও পরিবার চালাতেন তারা পড়েছেন চরম বিপাকে।

চলমান দুর্যোগে অনেকটাই মানবতের জীবনযাপন করছেন তারা। লকডাউনের কারণে উপার্জন করতে পারছে না তাদের পরিবারের সদস্যরাও। এমন দুঃসময়ে আর্থিক সঙ্কটে পড়া শিক্ষার্থীদের সহযোগিতায় কাজ করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকভিত্তিক প্লাটফর্ম 'করোনা মোকাবিলায় নোবিপ্রবিয়ানের পাশে নোবিপ্রবিয়ান।' 

বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান কয়েকজন শিক্ষার্থীর উদ্যোগে এটি পরিচালিত হচ্ছে। এতে আর্থিক সহযোগিতা করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও সামর্থবান বর্তমান শিক্ষার্থী। আর তাদের অনুদানকৃত টাকা উপহারস্বরূপ দেয়া হচ্ছে আর্থিক সঙ্কটে থাকা নোবিপ্রবিয়ানদের। যারা আর্থিক সঙ্কটে আছেন তারা মেসেঞ্জার কিংবা মুঠোফোনে নাম, ঠিকানা, ডিপার্টমেন্ট এসব তথ্য দিচ্ছেন।  সব তথ্য যাছাই-বাছাই করে সম্পূর্ণ গোপনীয়তার ভিত্তিতে বিকাশ কিংবা রকেটে উপহার পাঠিয়ে দিচ্ছেন গ্রুপের সদস্যরা। ইতোমধ্যে ৯০ জন নোবিপ্রবিয়ানকে ১,৩৫,৮৪০ টাকা উপহারস্বরূপ দিয়েছে নোবিপ্রবিয়ানরা।

চলমান করোনা দুর্যোগে বিশ্ববিদ্যালয়টির কয়েকজন শিক্ষার্থীর নেয়া এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

এ ব্যাপারে ফেসবুকভিত্তিক সহযোগিতা প্লাটফর্ম 'করোনা মোকাবিলায় নোবিপ্রবিয়ানের পাশে নোবিপ্রবিয়ান' এর অন্যতম উদ্যোক্তা  মোজাম্মেল জয় বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব বন্ধু, বড়ভাই আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল, টিউশনি করে পড়াশোনার খরচ চালাতেন পাশাপাশি পরিবারকেও সাপোর্ট দিতেন তারা আজ করোনা ভাইরাসের কারণে বিপদে পড়েছেন। তাদের কথা ভেবেই আমরা এই উদ্যোগটি নিয়েছি। আমরা যাচাই-বাছাই করে ১৫ দিন চলার জন্য নগদ টাকা উপহারস্বরূপ দিচ্ছি। আর এই টাকাগুলো আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, প্রাক্তন শিক্ষার্থী এবং বর্তমান সামর্থবান শিক্ষার্থীরা দিচ্ছেন। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থী ফার্মেসি বিভাগের এক বড়ভাই একাই ৫০,০০০ টাকা ডোনেট করেছেন। অনেক স্যার সহযোগিতা করছেন। সহযোগিতার এমন দৃষ্টান্ত বিরল। দেশের বর্তমান ক্রান্তিলগ্নে যেসব নোবিপ্রবিয়ানরা নোবিপ্রবিয়ানদের সহযোগিতা করছেন আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।



সাতদিনের সেরা