kalerkantho

বুধবার । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৭  মে ২০২০। ৩ শাওয়াল ১৪৪১

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে

পণ্য রাখার মাশুল মওকুফ করেছে চট্টগ্রাম বন্দর

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৪ এপ্রিল, ২০২০ ২১:২৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পণ্য রাখার মাশুল মওকুফ করেছে চট্টগ্রাম বন্দর

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারি সাধারণ ছুটিতে বিপুল পরিমাণ পণ্য আটকা পড়েছে চট্টগ্রাম বন্দরে। ব্যাংক, কাস্টমস এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার পরও কিছু জটিলতা ও সীমাবদ্ধতার কারণে পণ্য সরবরাহ নিতে পারছেন না ব্যবসায়ীরা। এই অবস্থায় ব্যবসায়ীদের আর্থিক ক্ষতি কমাতে স্টোর রেন্ট বা পণ্য রাখার ভাড়া মওকুফ করেছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। তবে ২৬ মার্চ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত যাদের পণ্য বন্দরে এসেছে এবং যারা এই সময়ের মধ্যে বন্দর থেকে পণ্য ডেলিভারি নেবেন কেবল তারাই এই সুবিধা পাবেন।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম বন্দরে প্রতি ২০ ফুট কন্টেইনার রাখার ভাড়া হচ্ছে ৬ মার্কিন ডলার এবং ৪০ ফুট দীর্ঘ কন্টেইনার রাখার ভাড়া হচ্ছে ১২ মার্কিন ডলার। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল জুলফিকার আজিজ কালের কণ্ঠকে বলেন, ২৬ মার্চ থেকে সরকারি ছুটিতে যাদের পণ্য বন্দরে পৌঁছেছে এবং ওই সময়ে পণ্য বন্দর থেকে ডেলিভারি নিবেন শুধুমাত্র তারাই স্টোর রেন্ট মওকুফের সুবিধা পাবেন। সব ধরনের পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা এই সুবিধা পাবেন। মন্ত্রণালয় থেকে আমি মৌখিকভাবে বিষয়টির অনুমোদন পেয়েছি; সরকারি খোলার দিনে আশা করছি লিখিত আদেশ পেয়ে যাব। তবে এর আগে থেকে যারা পণ্য এনে বন্দর ইয়ার্ডে রেখে দিয়েছেন তারা এর সুবিধাবঞ্চিত হবেন।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দেওয়া সরকারি ছুটিতে যেসব ব্যবসায়ীরা পণ্য এনেও ছাড় নিতে পারেননি। এই সুবিধার মাধ্যমে তাদের আর্থিক ক্ষতির কিছুটা হলেও কম হবে।

জানা গেছে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার ২৬ মার্চ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে। এই সময়ে চট্টগ্রাম বন্দর পুরোপুরি সচল ছিল। কাস্টমস, ব্যাংক অন্যান্য প্রতিষ্ঠান সীমিত পরিসরে খোলা রেখেছে। এরপরও বন্দরে কন্টেইনার ডেলিভারি সাধারণ সময়ের তুলনায় অর্ধেকে নেমেছে। এতে বন্দরের ভিতর কন্টেইনার রাখার ধারণক্ষমতা ছুঁই ছুঁই করছে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে মার্চ থেকে মে পর্যন্ত আগামী তিনমাস আমদানি পর্যায়ে সব ধরনের ভ্যাট অব্যাহতি, চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য ওঠা-নামার সব মাশুল মওকুফ, বিভিন্ন অফডক ও শিপিং এজেন্ট এর পণ্য রাখার মাশুল মওকূফসহ ১০ দফা দাবি জানিয়েছিলেন চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা