kalerkantho

শনিবার । ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৩০  মে ২০২০। ৬ শাওয়াল ১৪৪১

টেকনাফ নেটং পাহাড়ে নাশকতার আগুন!

বিশেষ প্রতিনিধি, কক্সবাজার   

১ এপ্রিল, ২০২০ ০১:৫৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টেকনাফ নেটং পাহাড়ে নাশকতার আগুন!

কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তের নেটং পাহাড়ের (পরীর পাহাড়) গহিন বনে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছে। কে বা কারা পাহাড়ে এ আগুন ধরিয়ে দিয়েছে বলে এলাকার মানুষ সন্দেহ করছে। এলাকাবাসীর আরো সন্দেহ এটি একটি নাশকতামূলক ঘটনা।

পাহাড়ে অবস্থানকারী রোহিঙ্গা সশস্ত্রগোষ্ঠী নাশকতার নেপথ্যে জড়িত থাকতে পারে বলে লোকজন মনে করছেন। সীমান্তের নাফ নদ ও বঙ্গোপসাগরের বুকের বিশাল পাহাড়টির অন্তত ১৪টি স্থানে আগুন দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে টেকনাফের পৌরসভার এলাকাধীন পাহাড়টিতে আকস্মিক আগুনের লেলিহান শিখা দেখা যায়। আগুন নেভাতে উপজেলা প্রশাসন, বন বিভাগ, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীসহ স্থানীয় লোকজন চেষ্টা চালাচ্ছে। এ ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কেউ হতাহত হবার খবর পাওয়া যায়নি।

টেকনাফ বন বিভাগ ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সন্ধ্যার দিকে পাহাড়ের প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকা জুড়ে আগুন জ্বলতে শুরু করে। টেকনাফ স্টেশনের ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা মুকুল কুমার নাথ সংবাদকর্মীদের জানিয়েছেন, পাহাড়ে আগুন লাগার খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা লোকালয়ে ছড়িয়ে পড়া আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে পারলেও পাহাড়ের পুরো আগুন নেভাতে পারেনি।

তবে গভীর রাতে এ প্রতিবেদন লেখাকালীন সময়ে জানা গেছে, রাতে পাহাড়ের কয়েকটি স্থানের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে। তবে অন্যন্য জায়গায় আগুন জ্বলছে। বাকি কয়েকটি পয়েন্টের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা ও তার আশপাশের জনবসতিতে যাতে ছড়িয়ে না পড়ে সে চেষ্টাই করা হচ্ছে।

ঘটনাস্থলে অবস্থান নেওয়া টেকনাফ বন রেঞ্জ কর্মকর্তা আশিক আহমদ জানিয়েছেন, আগুনের ঘটনাস্থল পাহাড়ের ভেতর হওয়াই ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ঢুকতে পারছে না। বনকর্মীদের সঙ্গে বন পাহারা সদস্য ও এলাকার শতাধিক লোকজন আগুন নেভাতে কাজ করছে।

টেকনাফের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, কারা আগুন দিয়েছে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। হঠাৎ করে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় লোকালয়ের কিছু অঞ্চল ঝুঁকিতে ছিল। এখনো পাহাড়ে আগুন জ্বলছে এবং তা নেভানোর চেষ্টা চলছে। তিনি জানান, এটি নাশকতা কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা