kalerkantho

শনিবার । ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৬ জুন ২০২০। ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

করোনা, এতা আরবার কিতা বা?

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি   

২৭ মার্চ, ২০২০ ২০:৪৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনা, এতা আরবার কিতা বা?

কমলগঞ্জে বাজারে সব কিছু বন্ধ। বাজারে নেই মানুষ। দুপুর ১২টা হঠাৎ চোখে পড়লো এক মধ্য বয়স্ক নারী বাজারে ১০ রোড রাস্তার অনামিকা ফামের্সির সামনে দিয়ে হেটে যাচ্ছেন। ওই নারী ডাক দিলেন ফামের্সির মালিক অজুর্ন শম্মা ও ওষুধ নিতে আসা ক্রেতা মাহমুদুল হাসান। কাছে আসতেই নাম জানা গেল খোদেজা বেগম। বাড়ি উপজেলার সদর ইউনিয়ন বাদেউবাহাটা (কালাছড়া) গ্রামের। জানতে চাওয়া হলো করোনা ভাইরাস রোগ দেশে। আপনি কেন বাহিরে চলাফেরা করছেন? তখন উল্টো বললেন, করোনা এতা আরবার কিতা বা? পেটের দায়ে রাস্তায় ভিক্ষা করছি।

বৃদ্ধ নারী জানান, দীর্ঘ ৫ বছর ধরে ভিক্ষাবৃত্তি করে সংসার চালাচ্ছেন। তিনি ২ সন্তান জননী। স্বামী আক্কল আলী অনেক আগেই মারা গেছেন। তার পর কন্যা পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়ে। একমাত্র ছেলে আপ্তাব আলী বিয়ে করে স্ত্রী নিয়ে চট্রগ্রামে বসবাস করছে। খোদেজা তাই বাধ্য হয়ে পেটে দায়ে প্রতিদিন ভিক্ষা করেন। কিন্তু তিনি জানতেন না হাটবাজার বন্ধ। আর করোনা কী জিনিস তাও জানেন না।

বিধবা নারী খোদেজার  করুন কাহিনী শুনে তাৎক্ষনিক সহযোগিতা করলেন ফার্মেসির মালিক অর্জুন শর্মা নিধু  ও এস এম মিনি সপ এর স্বত্বাধিকারী আলামীন সেজু  ও ক্রেতা  মাহমুদুল হাসান উজ্জল। খাদ্য সামগ্রী, নগদ কিছু অর্থ, মাস্ক, সাবান তুলেন দিলেন। বললেন করোনা রোগ প্রাদুভার্ব শেষ না হওয়া পর্যন্ত নিজ বাড়িতে থাকতে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা