kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ চৈত্র ১৪২৬। ৩১ মার্চ ২০২০। ৫ শাবান ১৪৪১

করোনাভাইরাস রোধে জয়পুরহাটে সাবান বিতরণ

জয়পুরহাট প্রতিনিধি   

২৭ মার্চ, ২০২০ ০৯:৩৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনাভাইরাস রোধে জয়পুরহাটে সাবান বিতরণ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে হাত ধোয়ার জন্য এক লাখ ২৬ হাজার সাবান বিতরণ করা হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জেলার পাঁচটি উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রত্যেক পরিবারে একটি করে ক্ষারযুক্ত হুইল সাবান বিতরণ কর্মসূচি শুরু হয়। আজ শুক্রবারও চলবে সাবান বিতরণ। করোনায় মানুষকে সচেতন করতে জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপনের আর্থিক সহযোগীতা ও উদ্যোগে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও দলীয় নেতাকর্মীদের মাধ্যমে সাবানগুলি বিতরণ করা হচ্ছে।

জয়পুরহাট রেলস্টেশন এলাকায় সাবান বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাকির হোসেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সালাম কবির, পৌর মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, জয়পুরহাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান রনি, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাকির হোসেন, জয়পুরহাট সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম প্রমূখ।

জয়পুরহাট পৌরসভার মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক বলেন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে হাত ধোয়ায় মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে জেলায় প্রায় আড়াই লাখ সাবান বিতরণের উদ্যোগ নেন জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন। বৃহস্পতিবার ১ লাখ ২৬ হাজার সাবান বিতরণ করা হয়েছে। বাকিগুলো শুক্রবারের মধ্যেই বিতরণ করা হবে। পাশাপাশি জেলাকে জীবাণুমুক্ত করতে হুইপের সরবরাহ করা সাড়ে চার টন ব্লিচিং পাউডারও জেলাজুড়ে স্প্রে করার কর্মসূচি অব্যাহত রাখা হয়েছে।

জেলা সিভিল সার্জন অফিস সুত্রে জানা গেছে, গত ১০ মার্চ থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত জেলায় বিদেশ থেকে আসা ২১৮ জনের হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হয়েছে। যাদের মধ্যে ১৫ জন আছেন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে। আর মেয়াদ পূর্তি হওয়ায় হোম কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ২৭ জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টিনরত রোগীর সংখ্যা ১৯১ জন। হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন আছেন একজন।

এ প্রসঙ্গে জেলা সিভিল সার্জন ডা: মো: সেলিম মিঞা বলেন, ‘জয়পুরহাটে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত একজন রোগী ও পাওয়া যায়নি। জেলায় আগত প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। প্রশাসনের সহযোগীতায় জেলায় প্রতিদিন প্রবাসীদের খুঁজে বের করে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হচ্ছে। করোনা ভাইরাস সম্পর্কে মানুষদের সচেতন করতে নেওয়া নানা উদ্যোগ চলমান রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা