kalerkantho

রবিবার । ২২ চৈত্র ১৪২৬। ৫ এপ্রিল ২০২০। ১০ শাবান ১৪৪১

পাকুন্দিয়ায় ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে জখম, মামলা

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৬ মার্চ, ২০২০ ১৭:২৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাকুন্দিয়ায় ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে জখম, মামলা

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় পূর্ব শত্রুতার জেরে জাহাঙ্গীর আলম মোনায়েম (৩৫)নামের এক ব্যবসায়ীকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে সন্ত্রাসীরা। উপজেলার চরআলগী গ্রামে মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটলেও আজ বৃহস্পতিবার সকালে আহতের ছোটভাই ইপেল মিয়া বাদি হয়ে পাঁচজনের নাম উল্লেখসহ আরও অজ্ঞাত ১০-১৫জনকে আসামি করে পাকুন্দিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। আহত মোনায়েম উপজেলার চরআলগী গ্রামের মৃত জালাল উদ্দিনের ছেলে। তিনি পেশায় একজন ইট ও বালু ব্যবসায়ী। মোনায়েম বর্তমানে ঢাকার উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঘর থেকে এক লাখ ৪০হাজার টাকা সঙ্গে নিয়ে একই গ্রামের মান্নানের ইটভাটা থেকে ইট কেনার জন্য বের হন জাহাঙ্গীর আলম মোনায়েম। পথে একই এলাকার মোস্তফার বাড়ির সামনে পৌঁছলে পূর্ব শত্রুতার জেরে পার্শ্ববর্তী পাগলা থানার বিরুই গ্রামের মড়ল মিয়ার ছেলে রতন মিয়ার নেতৃত্বে ১০-১৫জন সন্ত্রাসী মোনায়েমের পথরোধ করে। এসময় রতন মিয়ার হুকুমে প্রথমে একই থানার বারুই গ্রামের রাশিদের ছেলে রিপন মিয়া ওরফে কিরিচ রিপন মোনায়েমের মাথায় রামদা দিয়ে কোপ দেয়। পরে সকল সন্ত্রাসী মোনায়েমের ওপর সশস্ত্র হামলা চালায়। 
রতনের বিরুদ্ধে এক লাখ ৪০হাজার টাকাও ছিনতাইয়ের অভিযোগও করা হয়েছে। মোনায়েমকে উদ্ধার করে পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি কর হয়। অবস্থা আশঙ্কাজনক থাকায় তাকে কিশোরগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠান কর্তব্যরত চিকিৎসক। সেখান থেকে ওইদিনই উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতালে নিয়ে তাকে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন। 

মোনায়েমের ছোট ভাই মামলার বাদী ইপেল মিয়া বলেন, আমার ভাই মোনায়েম একজন নিরীহ মানুষ। অন্যদিকে রতন ও রিপন কুখ্যাত সন্ত্রাসী, মাদক কারবারি ও সব অপকর্মে জড়িত। তাদের বিরুদ্ধে থানায় ও আদালতে অনেক মামলা রয়েছে। এলাকায় ভয়ে তাদের বিরুদ্ধে কেউ কিছু বলতে সাহস পায়না। 

পাকুন্দিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.মফিজুর রহমান অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বর্তমানে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত বিভিন্ন কাজ নিয়ে পুলিশ ব্যস্ত রয়েছে। সুবিধামতো সময়ে আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা