kalerkantho

রবিবার । ২২ চৈত্র ১৪২৬। ৫ এপ্রিল ২০২০। ১০ শাবান ১৪৪১

রূপালী বাংলা জুট মিল

১১০০ শ্রমিকের বিরুদ্ধে মামলা, তদন্ত কমিটি

দিনাজপুর প্রতিনিধি   

২৬ মার্চ, ২০২০ ১৭:০৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



১১০০ শ্রমিকের বিরুদ্ধে মামলা, তদন্ত কমিটি

দিনাজপুরের বিরলে রূপালী বাংলা জুট মিলে শ্রমিকদের বিক্ষোভে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে এক হাজার ১০০ শ্রমিকের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। এই ঘটনায় জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে পৃথক দুইটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত নিহতের ঘটনায় কোন মামলা দায়ের করেনি পরিবার কিংবা শ্রমিকরা। নিহতের মরদেহ ময়না তদন্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

মিল মালিক আব্দুল লতিফ বলেন, টাকার সংকট থাকায় বুধবার বেতন দেওয়া সম্ভব হয়নি। কিন্তু শ্রমিকরা তা বুঝতে চায়নি। তারা ভাঙচুর করলে পুলিশ গুলি চালায়।

বিরল উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সবুজার সিদ্দিক সাগর ঘটনা স্থল পরিদর্শন করে আগামী রবিবারের সমুদয় বকেয়া বেতন প্রদান করা হবে বলে শ্রমিকদের আশ্বাস দিয়েছেন। 

বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাসিম হাবিব জানান, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি ভাঙচুর ও পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় ১০-১২ জনের নাম দিয়ে অজ্ঞাত আরও ১১০০ জন শ্রমিককে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছেন বিরল থানার এসআই আব্দুল কাদের। তবে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি। একটি ইউডি মামলা দায়ের করে নিহতের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুরের এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে ওই ঘটনায় জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ৩ সদস্য বিশিষ্ট ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২ সদস্য বিশিষ্ট পৃথক দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির প্রধান করা হয়েছে ডিএসবি'র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সচিন চাকমাকে। কমিটির সদস্য হলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) হাফিজুল ইসলাম ও জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি এটিএম গোলাম রসুল। আর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট শরিফুল ইসলাম ও সদস্য  বিরল উপজেলা নির্বাহী জিনাত রহমান। কমিটি দুইটি আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা করবেন। দিনাজপুর জেলা পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতেই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, বুধবার বিকেলে কোন প্রকার নোটিশ ছাড়াই বিরল উপজেলার রুপালী বাংলা জুট মিল বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। এ সময় বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকরা জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। পরিস্থিতি নিয়ে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা হলেও কোন প্রকার সিদ্ধান্ত হয়নি। যাতে করে শ্রমিকরা বকেয়া বেতনের দাবিতে ভাঙচুর শুরু করে। এ সময় পুলিশ বিষয়টি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করলে পুলিশের সাথে শ্রমিকদের সংঘর্ষ হয়। পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলি করে, যাতে সুরত আলী নামে একজন পান দোকানি নিহত হয়। এই সংঘর্ষের ঘটনায় ১৫ জন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা। আর পুলিশ দাবি করেছে, এই ঘটনায় তাদের ৬ জন সদস্য আহত হয়েছে। নিহত সুরত আলী বিরল পৌরসভা এলাকার হোসনা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা