kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ চৈত্র ১৪২৬। ৩১ মার্চ ২০২০। ৫ শাবান ১৪৪১

লাকসামে করোনা সুরক্ষা সরঞ্জাম সংকট

লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি.    

২৬ মার্চ, ২০২০ ০৯:৫০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লাকসামে করোনা সুরক্ষা সরঞ্জাম সংকট

কুমিল্লার বৃহত্তর লাকসামে করোনাভাইরাস সুরক্ষা সরঞ্জামের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। বাজারে মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হ্যান্ড গ্লাভস, জীবানু প্রতিরোধক সাবান, স্যাভলনসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদির চাহিদা প্রচুর বেড়েছে। তবে চাহিদার তুলনায় সরবরাহ না থাকায় বিপাকে পড়েছে স্থানীয়রা।

আজ বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) সকালে সরেজমিনে লাকসাম পৌর শহরের দৌলতগঞ্জ বাজারের একাধিক ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হ্যান্ড গ্লাভস, জীবাণু প্রতিরোধক সাবান, স্যাভলনসহ করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষায় প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদির ব্যাপক মজুদ ছিল। কিন্তু ব্যাপক চাহিদা ও রেকর্ড পরিমাণ বিক্রি হওয়ায় বর্তমানে এসব সরঞ্জামের সংকট দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, কুমিল্লার বৃহত্তর লাকসামে (লাকসাম, মনোহরগঞ্জ, নাঙ্গলকোট) প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে করোনাভাইরাস বিষয়ে সচেতনতামূলকক প্রচারাভিযানের ফলে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বেড়েছে। সাধারণ মানুষও কিছুটা নিয়মনীতি মেনে চলতে শুরু করেছেন।

এদিকে গত ২-৩ দিন ধরে উপজেলা ও পৌর প্রশাসনের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে তিনটি উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপনের পাশাপাশি জীবানুনাশক স্প্রে করা হচ্ছে। এমন উদ্যোগে ব্যক্তি ও পরিবারকেন্দ্রিক সচেতনতাও বেড়েছে। এতে স্থানীয়রা মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হ্যান্ড গ্লাভস, জীবাণু প্রতিরোধক সাবান ও স্যাভলনসহ প্রয়োজনীয়  সরঞ্জামাদি কেনার জন্য পার্শ্ববর্তী হাট-বাজারগুলোতে যাচ্ছেন। কিন্তু বাজারে এগুলোর ব্যাপক চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে অনেকেই কিনতে পারছেন না।

অপরদিকে, গতকাল বুধবার থেকে দোকানপাট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় লাকসাম পৌর শহরের দৌলতগঞ্জ, নাঙ্গলকোট পৌরসদর ও মনোহরগঞ্জ সদরসহ বিভিন্ন হাট-বাজারে করোনা প্রতিরোধ সহায়ক সরঞ্জামাদি কিনতে পারছে না অনেকেই। এ ছাড়া এগুলোর সংকটও রয়েছে। ফলে মানুষ চরম বিপাকে পড়েছে। 

লাকসামের একাধিক ব্যবসায়ী বলেন, কম্পানির প্রতিনিধিদের কাছে তাঁরা বারবার চাহিদাপত্র দিয়েছেন। কিন্তু উৎপাদন না থাকায় তাঁরা সরবরাহ করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন। এ সংকট কাটিয়ে উঠতে কিছুটা সময় লাগতে পারে বলে ব্যবসায়ীরা জানান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা