kalerkantho

রবিবার । ২২ চৈত্র ১৪২৬। ৫ এপ্রিল ২০২০। ১০ শাবান ১৪৪১

ময়লা-আবর্জনার স্তুপে ভরা নবীগঞ্জ

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১১:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ময়লা-আবর্জনার স্তুপে ভরা নবীগঞ্জ

নবীগঞ্জ পৌর শহর যেন এখন ময়লা-আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। এতে স্বাভাবিক সুস্থ পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। পচা দূর্গন্ধে ঘটছে বায়ুদূষণ,স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে আছেন পৌরবাসী।

শহরবাসীর অভিযোগ, নবীগঞ্জ পৌর কর্তপক্ষের দায়িত্ব অবহেলা ও উদাসীনতার কারনে শহরের প্রাণকেন্দ্রে সুইপাররা ফেলে দিচ্ছে ময়লা-আবর্জনা। যা দিনের পর দিন স্তুপ হিসেবে জমা থাকে। এর ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়ছে স্কুল কলেজগামী ছাত্র-ছাত্রী, বাজারের ব্যবসায়ী, পথচারী, বাসা বাড়ির লোকজন।

এ নিয়ে একাধিকবার পৌর কৃর্তপক্ষকে জানালেও কোনো প্রতিকার পাচ্ছেনা ভুক্তভোগী জনগণ। পৌর কৃর্তপক্ষের ভূমিকা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এ সমস্যা সমধানে পৌর মেয়রের তড়িৎ হস্তক্ষেপ কামনা করছেন ভুক্তভোগীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, শহরের ওসমানী রোড টেকাদিঘী মার্কেটের সামনে জে.কে স্কুল মার্কেট ও দারুল উলুম মাদ্রাসার মধ্যস্থানে খালি অংশে হাসপাতাল সড়কের সিএনজি স্ট্যান্ড ও হীরা মিয়া গালর্স হাই স্কুলের বাইপাস সড়কের সামনে পরিত্যক্ত জায়গায় ময়লা-আবর্জনা, পচা-বাসী খাবারের দুর্গন্ধযুক্ত স্তুপ।

এর কারণে শহরের সুস্থ পরিবেশ বিনষ্ট হচ্ছে। সর্বত্র পচা দুর্গন্ধের চিত্র। শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে ময়লা আবর্জনা নিয়ে এসে উপরোল্লেখিত স্থানে ফেলে চলে যায় পৌরসভার সুইপাররা।

পৌরবাসীর অভিযোগ, ময়লা আবর্জনা ফেলার জন্য পরিকল্পিত কোনো ব্যবস্থা না থাকার কারণে এমনটি হচ্ছে। এ নিয়ে পরিকল্পনার করা দরকার। তা না হলে শহর যেমন অপরিচ্ছন্ন হবে, তেমনি মানুষের শরীরেও নানা রোগ বাসা বাধঁবে।

এদিকে, সুইপাররা ময়লা আবর্জনা ফেলে যাওয়ার পর সেগুলোতে টোকাইদের নাড়াচাড়া ও কুকুরের খাবার খোঁজায় দুর্গন্ধ আরো চরম আকার ধারণ করে। ফলে সাধারণ মানুষের নাক ঢেকে শ্বাস বন্ধ করে ও যাতায়াত করতে হয়। অনেক সময় শহরে বসবাসরত বাসা বাড়ীর ও ব্যবসা প্রতিষ্টানের লোকজন পরিবেশ দূষণের কারণে নানা রকম রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

নবীগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র এ টি এম সালাম এ বিষয়ে বলেন পৌর কর্তৃপক্ষ দ্রুত ময়লার স্তুপ সমস্যা নিরসনের জন্য গয়াহরি এলাকায় প্রবাসী কমিউনিটি লিডার ফুল মিয়ার দানকৃত ৪০ শতক জায়গায় ময়লা ফেলার নির্ধারিত স্থান নির্মাণ করা হচ্ছে। নির্মাণকাজ শেষ হলে খুব শীঘ্রই এ সমস্যা থেকে পৌরবাসী মুক্তি পাবেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা