kalerkantho

শুক্রবার । ২০ চৈত্র ১৪২৬। ৩ এপ্রিল ২০২০। ৮ শাবান ১৪৪১

চুয়াডাঙ্গায় স্বর্ণ পাচার মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৯:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চুয়াডাঙ্গায় স্বর্ণ পাচার মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

চুয়াডাঙ্গায় স্বর্ণ পাচার মামলায় শিপন রানা ওরফে বাবু (৩০) নামের এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।  আজ বুধবার বিকেলে চুয়াডাঙ্গার স্পেশাল ট্রাইবুনাল-১ এর বিচারক মোহাঃ রবিউল ইসলাম এক জনার্কীণ আদালতে এ রায় দেন। 

দণ্ডিত শিপন রানা দামুড়হুদা উপজেলার ঝাঁঝাডাঙ্গা গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে। রায় ঘোষণার সময় তিনি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

চুয়াডাঙ্গার পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট বেলাল হোসেন জানান, ২০১৭ সালের ১৪ এপ্রিল ভোরে চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবির একটি টহল দল দামুড়হুদা উপজেলার পারকৃষ্ণপুর গ্রামে অভিযান চালায়। এ সময় গ্রামের প্রগতি লাইফ ইন্সুরেন্স অফিসের সামনে থেকে শিপন রানা ওরফে বাবুকে মোটরসাইকলেসহ আটক করে। পরে তার দেহ তল্লাশি করে উদ্ধার করা হয় ১ কোটি ১৯ লাখ ৭৭ হাজার ২৩ টাকা মূল্যের তিনটি স্বর্ণের বার। যার ওজন ৩ কেজি ১৭৫ গ্রাম। এ ঘটনায় বিজিবির নায়েক সুবেদার তোতা মিয়া বাদী হয়ে দামুড়হুদা মডেল থানায় স্বর্ণ পাচারের একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় ১৯৭৪ সালের স্পেশাল পাওয়ার এ্যাক্টের ২৫-বি (১) (এ) ধারায় অভিযুক্ত শিপন রানা ওরফে বাবুর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়।

তিনি আরো জানান, আলোচিত স্বর্ণ পাচারের এ মামলায় দামুড়হুদা মডেল থানার ইন্সপেক্টর ইমদাদুল হক তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ৩১ অক্টোবর একমাত্র আসামি শিপন রানা ওরফে বাবুকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। বিজ্ঞ আদালত এ মামলায় মোট আটজন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্যগ্রহণ করেন। স্বাক্ষ্যগ্রহণে আদালত অভিযুক্ত শিপন রানা ওরফে বাবুকে দোষী সাব্যস্ত্র করে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা