kalerkantho

শনিবার । ২১ চৈত্র ১৪২৬। ৪ এপ্রিল ২০২০। ৯ শাবান ১৪৪১

তৃতীয় দিনে গড়াল রিফাত হত্যার শেষ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ

বরগুনা প্রতিনিধি   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:৫৩ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



তৃতীয় দিনে গড়াল রিফাত হত্যার শেষ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ

বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলার শেষ সাক্ষী ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবিরের সাক্ষ্যগ্রহণ তৃতীয় দিনে গড়িয়েছে। গত মঙ্গলবার দুপুর থেকে শুরু হয় তার সাক্ষ্যগ্রহণ। বুধবার দিনব্যাপীও চলে এ সাক্ষ্যগ্রহণ। 

বুধবার সকাল থেকে শুরু করে সন্ধ্যা নাগাদ তার সাক্ষ্যগ্রহণ অসম্পূর্ণ অবস্থায় আদালত মুলতবি ঘোষণা করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুর নাগাদ এ সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হতে পারে বলে ধারণা করছেন বরগুনার পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ভূবন চন্দ্র হালদার। সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবিরকে আসামি পক্ষের ৯ জন আইনজীবী জেরা করবেন বলেও জানান পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ভূবন চন্দ্র হালদার।

এর আগে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় সিআইডির আইটি স্পেশালিস্ট জাকির হোসেন ইমন এবং সিআইডির অপর আইটি স্পেশালিস্ট নাজমুল হাসানের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। এ দুজনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে মঙ্গলবার থেকেই আদালতে সাক্ষ্য প্রদান শুরু করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবীর।

এছাড়াও এ মামলার আসামি আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন বাতিলের জন্য রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবির মোহাম্মদ হোসেনের দাখিল করা তদন্ত প্রতিবেদনের শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও তা হয়নি। মিন্নির আইনজীবীর সময় প্রার্থনার জন্য আদালত তদন্ত প্রতিবেদনের শুনানি তারিখ পিছিয়ে দেন।

সাক্ষ্যগ্রহণ উপলক্ষে সকালে বরগুনার জেলা কারাগারে থাকা এ মামলার প্রাপ্তবয়স্ক আট আসামিকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এছাড়াও আদালতে হাজির হন উচ্চ আদালতের আদেশে জামিনে থাকা নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি।

গত ১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। এরপর ৮ জানুয়ারি থেকে ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মোট ২৪ কার্যদিবসে এ মামলার ৭৫ জন সাক্ষীর মধ্যে ৭৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন করার পাশাপাশি শেষ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ চলমান রয়েছে। এছাড়া গোলাম সরোয়ার নামে একজন সাক্ষী প্রবাসে থাকায় তার সাক্ষ্যগ্রহণ করতে পারেনি আদালত।

এ বিষয়ে রিফাত হত্যা মামলার বাদীপক্ষের মনোনীত আইনজীবী অ্যাডভোকেট মুজিবুল হক কিসলু বলেন, ইতিমধ্যেই রিফাত হত্যা মামলার ৭৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ৭৫ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন করেছে বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। গত মঙ্গলবার থেকে এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও শেষ সাক্ষী বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মো. হুমায়ুন কবিরের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। কিন্তু গত দুদিনেও তার সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হয়নি। তাই বৃহস্পতিবার তদন্তকারী কর্মকর্তার বাকি সাক্ষ্যগ্রহণ করা হবে।

তিনি আরো বলেন, দুই সাক্ষীকে হুমকি দেওয়ার জন্য রাষ্ট্রপক্ষ মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন করেছিল গত আট জানুয়ারি। এ জন্য আদালতের নির্দেশে সাক্ষীদের হুমকি দেওয়ার বিষয়টি তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেছেন বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। সেই তদন্ত প্রতিবেদনের শুনানির দিন ধার্য ছিল মঙ্গলবার। কিন্তু মিন্নির আইনজীবী সময় প্রার্থনা করায় মঙ্গলবার এবং পরের দিন বুধবারও শুনানি হয়নি। 

প্রসঙ্গত, গত ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত হত্যাকাণ্ড ঘটে। গত ১ সেপ্টেম্বর ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্ত ও অপ্রাপ্তবয়স্ক; দুই ভাগে বিভক্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দেয় পুলিশ। এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জন। মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনো পলাতক। পাশাপাশি রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ছয়জন আসামি জামিনে রয়েছেন। বাকিরা কারাগারে।

গত ১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। এরপর ৮ জানুয়ারি অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনার শিশু আদালত।

রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলেন- রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান, মো. মুসা, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর এবং কামরুল ইসলাম সাইমুন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা