kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৪:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) থেকে ইতিহাস বিভাগের অনুমোদন দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন আজ বুধবার ছিল ১৪তম দিনে গড়াল। বুধবার সকাল থেকে বিক্ষোভে উত্তাল ছিল গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস।

প্রতিদিনের ন্যায় বুধবার সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন শুরু করে ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে পুরো ক্যাম্পাস। লাগাতার আন্দোলনে ১৪ দিন বিশ্ববিদালয়ের সকল ধরনের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।  এ দিন দুপুর ১২টায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন ইতিহাস বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র কারিমুল হক ও মো. আবতাবুজ্জান। তারা বলেন, গত মঙ্গলবার ইউজিসি বিশ্বাবিদ্যালয়ের প্রশাসনের সঙ্গে একটি সভা করেছে এটা আমরা রেজিস্ট্রার অফিস সূত্রে জানতে পেরেছি। সভায় ইউজিসি সদস্য দিল আফরোজ বেগমকে প্রধান করে ৭ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। কিন্তু তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের কোনো নির্দিষ্ট সময়সীমা দেওয়া হয়নি। এই কারণে আমরা বিভাগ অনুমোদন ঘোষণার আগ পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাব। তিনি আরো বলেন, যদি আন্দোলনকে পুঁজি করে কেউ অপরাজনীতির চেষ্টা করে তবে তাদের আমরা কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়ে বলতে চাই- শিক্ষার্থীদের অধিকার নিয়ে আপনারা খেলবেন না। এর ফলাফল ভালো হবে না। তিনি আরো বলেন, বিভাগ অনুমোদনের ঘোষণা যতদিন পর্যন্ত না হবে তত দিন পর্যন্ত এই আন্দোলন চলবে।

অপর ছাত্র মো. আবতাবুজ্জান বলেন, চলতি আন্দোলনে এই পর্যন্ত ১০ শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। তারপরও আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

পরে দুপুর সাড়ে ১২টায় ক্যাম্পাসে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে আন্দোলনকারীরা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আন্দোলনস্থল প্রশাসনিক ভবনের সামনে শেষ হয়।

এদিকে, উদ্ভুত পরিস্থিতি নিরসনের লক্ষ্যে গত মঙ্গলবার বেলা দেড়টায় ঢাকায় ইউজিসির সঙ্গে বশেমুরবিপ্রবির ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য ড. মো. শাহজাহানের নেতৃত্বে ৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদলের বৈঠক হয়। বৈঠকে ইউজিসি সদস্য দিল আফরোজ বেগমকে প্রধান করে ৭ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মো. নূরউদ্দিন আহম্মেদ। এই কমিটি ইতিহাস বিভাগের অনুমোদনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য সমস্যা নিয়ে তদন্ত করবেন। তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর ইউজিসি তাদের সিদ্ধান্ত জানাবেন বলে জানিয়েছেন বশেমুরবিপ্রবির রেজিস্ট্রার মো. নূরউদ্দিন আহম্মেদ।

প্রসঙ্গত, গত ৬ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনে (ইউজিসি) অনুষ্ঠিত এক সভায় বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ইতিহাস বিভাগের অনুমোদন না দিয়ে আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি না করার নির্দেশ প্রদান করায় শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামে। বর্তমানে এ বিভাগটিতে ৪১৩ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা