kalerkantho

শুক্রবার । ২০ চৈত্র ১৪২৬। ৩ এপ্রিল ২০২০। ৮ শাবান ১৪৪১

আজ সিঙ্গাইরে আসছেন লন্ডনের মেয়র রওশনারা

মোবারক হোসেন, সিঙ্গাইর (মানিকগঞ্জ)   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০২:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আজ সিঙ্গাইরে আসছেন লন্ডনের মেয়র রওশনারা

নারীর টানে পৈতৃক বাড়ি মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে আসছেন লন্ডনের রামসগেট সিটির মেয়র রওশনারা রহমান। আজ বুধবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে হেলিকপ্টারযোগে নিজ বাড়িতে পৌঁছানোর কথা রয়েছে তার। রওশনারা উপজেলার তালেবপুর ইউনিয়নের ইরতা কাশিমপুর (কাঠাল বাগান) গ্রামের রজ্জব আলীর মেয়ে। তাকে বরণ করতে প্রস্তুত আত্মীয়স্বজন  ও এলাকাবাসী। তার আগমনকে ঘিরে গ্রামবাসীর মধ্যে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, রওশনারা স্থানীয় তালেবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। এরপর ১৯৬৭ সালে ১৩ বছর বয়সে তিনি প্রকৌশলী বাবা রজ্জব আলীর সঙ্গে যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমান। সেই থেকে সপরিবারে বসবাস করছেন সেখানে। সময় পেলে নারীর টানে ছুটে আসেন নিজের পৈতৃক বাড়িতে। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার (১৯ জানুয়ারি) সকাল ৮টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামবেন তিনি। এরপর ঢাকায় কয়েক ঘণ্টা বিশ্রাম নেওয়ার পর হেলিকপ্টারযোগে গ্রামের বাড়িতে পৌঁছবেন। 

রওশনারা আইন পেশায় উচ্চতর ডিগ্রি লাভ করেন। পড়ালেখা শেষে যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টির রাজনীতিতে নাম লেখান। রাজনীতির পাশাপাশি হোটেল ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্ত হন তিনি। রওশনারা রামসগেট শহরের প্রাণকেন্দ্রে ‘তন্দরি’ নামে একটি রেস্টুরেন্টের মালিক। তার স্বামী রেজাউর রহমান জামানের বাড়ি পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলায়। তিন বোন ও দুই ভাইয়ের মধ্যে তিনি সবার বড়।

২০১৭ সালে যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টি থেকে পার্লামেন্ট নির্বাচনে অংশ নেন রওশনারা। ওই নির্বাচনে সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। এর আগে লেবার পার্টি থেকে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। সর্বশেষ গত বছরের ১৪ মে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে রওশনারা যুক্তরাজ্যের রামসগেটের মেয়র নির্বাচিত হন।

চাচাতো ভাই আব্দুল মোতালেব হোসেন বলেন, রওশনারার বাবা রজ্জব আলী খান গত বছরের মার্চ মাসে মারা গেছেন। তিনি ছিলেন বুয়েটের প্রথম ব্যাচের ছাত্র। এলাকায় দানবীর হিসেবে তার সুখ্যাতি ছিল। তিনি নিজের জমিতে মসজিদ-মাদরাসা ও ঈদগাহসহ সামাজিক প্রতিষ্ঠান তৈরি করে গেছেন।

বাবার মতো রওশনারারও এলাকার প্রতি রয়েছে টান। সব সময় চেষ্টা করেন এলাকার মানুষের জন্য কিছু করার। নিজ গ্রামে রামস-বাংলা মহিলা উন্নয়ন সংস্থা নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন রওশনারা। প্রতিষ্ঠানটির মাধ্যমে তিনি প্রাকৃতিক দুর্যোগে অসহায়দের দান অনুদান দেন। এছাড়া ফ্রি-মেডিক্যাল ক্যাম্পের মাধ্যমে গ্রামের অনেক গরিব মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে সুস্থ করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা