kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

ইউএনও’র হস্তক্ষেপে দূষণ থেকে বাঁচল একটি গ্রাম

সিঙ্গাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইউএনও’র হস্তক্ষেপে দূষণ থেকে বাঁচল একটি গ্রাম

ছবি: কালের কণ্ঠ

মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে অবৈধভাবে কাঁচা চামড়া প্রক্রিয়াজাত করে মশার কয়েল ও পোল্ট্রি ফিডের উপকরণ তৈরির অভিযোগে রুবিনা (৩৫) নামে এক  নারীকে ৩০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ওই নারী উপজেলার উপজেলার কাংশা গ্রামের রোকমান হোসেনের স্ত্রী। সেই সঙ্গে ধ্বংস করা হয় কারখানার মেশিন ও সব মালামাল। আজ মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে এ অর্থদণ্ডাদেশ দেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুনা লায়লা।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, রোকমান হোসেন কয়েক মাস ধরে উপজেলার কাংশা এলাকায় কৃষি জমি ভাড়া নিয়ে কাঁচা চামড়া প্রক্রিয়াজাত করে মশার কয়েল ও পোল্ট্রি ফিডের উপকরণ তৈরি করে আসছিল।

এতে কাংশা গ্রাম ও আশপাশের এলাকায় পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি ও দূষণ দেখা দেয়। কাঁচা চামড়ার গন্ধে এলাকায় বসবাসরত মানুষের স্বাস্থ্য হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়ে। দেখা দেয় নানা রোগের প্রাদুর্ভাব।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুনা লায়লা সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স নিয়ে ওই কারখানায় অভিযান চালান। অভিযানের খবর পেয়ে কারখানার মালিক রোকমান হোসেন ও শ্রমিকরা পালিয়ে যায়।

এ সময় রোকমানের স্ত্রী রুবিনাকে আটক করা হয়। আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয় কারখানার মেশিন ও সব মালামাল। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে রাত ৮টার দিকে রুবিনাকে ৩০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা