kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

প্রাক্তন ছাত্রদের মিলন মেলায় মুখরিত নোয়াখালী জিলা স্কুল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ জানুয়ারি, ২০২০ ১৪:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রাক্তন ছাত্রদের মিলন মেলায় মুখরিত নোয়াখালী জিলা স্কুল

'আলোর স্রোতে প্রাণের মেলায়' এই শ্লোগানকে সামনে রেখে গত শনিবার বর্ণিল আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে নোয়াখালী জিলা স্কুলের প্রাক্তন ছাত্রদের মিলন মেলা। 

নোয়াখালী জিলা স্কুল প্রাক্তন ছাত্র ফোরামের উদ্যোগে ১৮৫০ সালে স্থাপিত প্রাচীনতম এই বিদ্যাপীঠের মিলন মেলার আয়োজন করা হয়। এ আয়োজনে ১৯৪৮ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সকল প্রাক্তন ছাত্রদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে ফোরামের সদস্যভুক্ত হয়ে মিলন মেলায় অংশ নেয় প্রায় ২৫০০ এর অধিক প্রাক্তন ছাত্ররা।

এ দিন প্রিয় বিদ্যালয়ে প্রাণের বন্ধুদের টানে দেশ এবং দেশের বাইরে থেকে অংশ নেওয়া প্রাক্তন ছাত্রদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে পুরো শিক্ষাঙ্গন। পুরনো বন্ধুদের কাছে পেয়ে তৈরি হয় আনন্দ আর আবেগঘন পরিবেশের। দিনভর চলে আড্ডা, স্কুলের স্মৃতিচারণ, ফটোসেশন ও সাংস্কৃতিক আয়োজন। 

সকালে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় দিনের আয়োজন। এরপর নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী জাতীয় সংগীত ও বেলুন উড়িয়ে মিলন মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

এরপর পরই বের হয় প্রাক্তন ছাত্রদের নিয়ে আনন্দ শোভাযাত্রা। এটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবারো ফিরে আসে স্কুল প্রাঙ্গনে।

স্মৃতিচারণ পর্বে স্কুল নিয়ে নানা গল্পে আয়োজনকে আরো বর্ণিল করে তোলেন প্রাক্তন ছাত্ররা। এ সময় স্কুল নিয়ে নিজেদের স্মৃতিচারণ করেন সাবেক সচিব ও রাষ্ট্রদূত এ এইচ মোফাজ্জল করিম, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ফজলুল আজিম, সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব সাদত হোসাইন, ফোরাম সভাপতি আহমেদ নজীর সহ আরো অনেকে।

দিনব্যাপি মিলন মেলায় বিকেল গড়াতেই শুরু হয় পিঠা উৎসব। আর সন্ধ্যা নামতেই শুরু হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক আয়োজন। সেখানে অংশ নেয় জনপ্রিয় সংঙ্গীত শিল্পী এসআই টুটুল, ওয়ারফেইজ ব্যান্ডসহ স্থানীয় শিল্পীরা। পুরো অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন দেশের জনপ্রিয় উপস্থাপক ও নোয়াখালী জিলা স্কুলেরই প্রাক্তন ছাত্র খন্দকার ইসমাইল এবং ইকবাল খোরশেদ।

আতশবাজী, ফানুশ ওড়ানো আর র‍্যাফেল ড্রয়ের মধ্য দিয়ে পর্দা নামে মিলন মেলার দিনব্যাপি আয়োজনের।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা