kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

লাখ লাখ টাকার বিদ্যুৎ বিল ফাঁকি

চালকলের বিদ্যুৎ সংযোগে চলছে ইটভাটা

মহাদেবপুর-বদলগাছী (নওগাঁ) প্রতিনিধি   

১৪ জানুয়ারি, ২০২০ ১৯:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চালকলের বিদ্যুৎ সংযোগে চলছে ইটভাটা

নওগাঁর মহাদেবপুরে 'কফিল অ্যান্ড রাজ্জাক অ্যাগ্রো লিমিটেড' চালকলের ক্ষুদ্রশিল্পের বিদ্যুৎ সংযোগে চলছে ইটভাটার বাণিজ্যিক কার্যক্রম। সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে প্রতিমাসে লাখ লাখ টাকা ফাঁকি দিয়ে চলছে এ অবৈধ সংযোগ। স্থানীয়রা বলছেন চালকল থেকে মাটির নিচ দিয়ে পাশের ইটভাটায় সংযোগ দিয়ে এভাবেই চলছে বছরের পর বছর। আর বিদ্যুৎ কর্মকর্তারা বলছেন, বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ এসেছে। দ্রুত ক্ষতিয়ে দেখা হবে।

জানা গেছে, উপজেলার নাটশাল এলাকায় অবস্থিত কফিল অ্যান্ড রাজ্জাক অ্যাগ্রো লিমিটেড প্রতিষ্ঠিত হয় ২০১৬ সালে। সে সময় ক্ষুদ্রশিল্পের জন্য বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয় এ চালকলটিতে। বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কর্তৃক সরবরাহকৃত বিদ্যুতের খুচরা মূল্য ক্ষুদ্রশিল্পে প্রতি ইউনিট ৮ টাকা ২০ পয়সা এবং বাণিজ্যিকে প্রতি ইউনিট ১০ টাকা ৩০ পয়সা। প্রতিমাসে কফিল অ্যান্ড রাজ্জাক অ্যাগ্রো লিমিটেড চাউল কলের মিটারে প্রায় ৯১ হাজার ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হয়। ক্ষুদ্রশিল্প অনুসারে প্রত্যেক মাসে বিল আসে প্রায় ৭ লাখ ৪৬ হাজার ২০০ টাকা। আর বাণিজ্যিক হলে এর বিল আসত ৯ লাখ ৩৭ হাজার ৩০০ টাকা। এতে প্রতিমাসে বিদ্যুৎ বিল ফাঁকি দেওয়া হচ্ছে প্রায় ১ লাখ ৯১ হাজার ১০০ টাকা। আর এভাবেই প্রতিষ্ঠানটি পল্লী বিদ্যুৎকে লাখ লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল ফাঁকি দিয়ে ক্ষুদ্রশিল্পের বিদ্যুৎ সংযোগে বছরের পর বছর বাণিজ্যিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে সংশ্লিষ্টদের মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে চলছে এ অবৈধ্য সংযোগ।

ইটভাটার শ্রমিক আবুল হোসেন বলেন, পাশের চালকল থেকে ইটভাটায় বিদ্যুৎ আনা হয়েছে মাটির নিচ দিয়ে। আর এ বিদ্যুৎ ব্যবহার হচ্ছে পুরো ইটভাটায়। ইটভাটার জন্য আলাদা কোনো সংযোগ নেই। ইটভাটার ম্যানেজার আমজাদ হোসেন বলেন, চালকলের বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েই চলছে ইটভাটা। তবে ভাটার জন্য আলাদা সংযোগের আবেদন করা হয়েছে। নতুন সংযোগ পেলে চালকলের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে। 

কফিল অ্যান্ড রাজ্জাক অ্যাগ্রো লিমিটেড এর চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাকের সাথে মঙ্গলবার বিকালে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

মহাদেবপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) শাহিনুর ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। ডিসেম্বর মাসে বিলের সাথে তার ৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ওই প্রতিষ্ঠানের মালিক ইটভাটার জন্য নতুন সংযোগের আবেদন করেছেন। ভাটাতে নতুন সংযোগ দিয়ে চালকলের লাইন আলাদা করা হবে। নওগাঁ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ২ এর জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) নুরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি অভিযোগ আকারে পেয়েছি। তদন্তসাপেক্ষে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা