kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

আশুগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০২:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আশুগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. সালাউদ্দিনকে গ্রেপ্তারের দাবিতে গতকাল রবিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সামনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ঠিকাদার অ্যাসোসিয়েশন মানববন্ধন করেছে। এদিকে সালাউদ্দিনের দাবি, ঠিকাদারদের নিম্নমানের কাজের বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করায় তাঁর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন ঠিকাদাররা। 

ঠিকাদার আবু জাহের মৃধার সভাপতিত্বে গতকালের কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন মোখলেছুর রহমান, দানা মিয়া, সৈয়দ জোবায়ের আহম্মেদ প্রমুখ। বক্তারা অভিযোগ করেন, আশুগঞ্জ-তালশহর সড়কের সংস্কারকাজ চলা অবস্থায় গত ৪ ডিসেম্বর চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন ছয় লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। একপর্যায়ে তিনি কাজ বন্ধ করে দেওয়ার পাশাপাশি ঠিকাদারের লোকজনকে মারধর করেন। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ওই চেয়ারম্যানসহ অন্য অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার না করা হলে আন্দোলন করার হুমকি দেন ঠিকাদাররা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আশুগঞ্জ-তালশহর আট কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের কাজ পায় মেসার্স মোস্তফা কামাল ও লোকমান হোসেন জয়েন্ট ভেঞ্চার কনস্ট্রাকশন ফার্ম। এলজিইডির অধীনে বাস্তবায়নাধীন পাঁচ কোটি ২৭ লাখ টাকার ওই সড়ক সংস্কারের কাজে নিম্নমানের পণ্য ব্যবহার করা হচ্ছে—এমন অভিযোগে আশুগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. সালাউদ্দিন, তালশহর ইউপি চেয়ারম্যান মো. আবু সামা ও আড়াইসিধা ইউপি চেয়ারম্যান মো. সেলিম গত ৫ ডিসেম্বর এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলীর কাছে চিঠি দেন। এরপর চাঁদা দাবি ও মারধরের অভিযোগ এনে গত ১০ ডিসেম্বর সালাউদ্দিনসহ ১৩ জনকে আসামি করে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়।

এ বিষয়ে মো. সালাউদ্দিন বলেন, ‘যদি তদন্তহ করে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া যায়, তাহলে ব্যবস্থা নেওয়া হোক। আর যদি অভিযোগ মিথ্যা হয় তাহলে যেন সে বিষয়েও ব্যবস্থা নেওয়া হয়।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা