kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

ভাতাবঞ্চিত ছয় মুক্তিযোদ্ধার পরিবার

জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৮:৫৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভাতাবঞ্চিত ছয় মুক্তিযোদ্ধার পরিবার

মুক্তিযোদ্ধা ভাতা যতোটা না আর্থিক, তার চেয়ে ঢের বেশি গৌরবের। সরকার সার্বিক বিবেচনায় মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের পরিবার সদস্যদের জন্য ভাতা প্রবর্তন করেছে। অথচ গেজেটে থাকা ছয় মুক্তিযোদ্ধার পরিবার পাচ্ছেন না সম্মানি ভাতা। ঘটনাটি সুনামগঞ্জ জগন্নাথপুরের।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বিষয়টি নজরে আসলে চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারি সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ লিখিতভাবে নির্দেশ দিয়েছেন ভাতাবঞ্চিত ছয় মুক্তিযোদ্ধার পরিবারকে তালিকাভুক্ত করার জন্য। সুনামগঞ্জের সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালককে দেয়া এ নির্দেশ কার্যকর হয়নি অজ্ঞাত কারণে। ভাতাবঞ্চিত ছয় মুক্তিযোদ্ধা হলেন- জগন্নাথপুর উপজেলার শ্যামারগাঁও গ্রামের মৃত আলাউদ্দিন (মুক্তিবার্তা ০৫০২০৩০০৫০, গেজেট-২৬০০,০৪-০৬-০৫), জগন্নাথপুর পৌরশহরের জগন্নাথপুর এলাকার মৃত বকুল ভট্রাচার্য্য (মুক্তিবার্তা০৫০৩০০৪৩, গেজেট-২৫৬৩,২২-০৬-০৬), উপজেলার মিঠাভরাং গ্রামের মৃত শাহজাহান চৌধুরী (গেজেট-২৬৪৩, ০৪-০৬-০৫), জগন্নাথপুর পৌরশহরের ইকড়ছই এলাকার মৃত মির্জা আব্দুল মতিন (গেজেট-৩৩৭৯, ২৪-১১-০৫) একই এলাকার মৃত আলমাছ হোসেন (গেজেট-১৫৯৬, ০১-০৬-১৪) ও গড়গড়িকান্দি গ্রামের মৃত ছিদ্দেক আলী (গেজেট-৩৩৮৯, ২৪-১১-০৫)।

মুক্তিযোদ্ধা আলমাছ মিয়ার বড় ছেলে আলমগীর হোসেন বলেন, 'আমার বাবা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। কিন্তু স্বাধীনতার ৪৭ বছর পেরিয়ে গেলেও আমরা সম্মানী ভাতা পাইনি। জেলা প্রশাসক নির্দেশনা দিলেও কোন সুফল মিলেনি। বারবার স্থানীয় সমাজসেবা অফিসে ভাতার জন্য ধর্ণা দিয়ে কোন সমাধান পাওয়া যায়নি।'

জগন্নাথপুর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আবুল কালাম বলেন, 'আমাদের কার্যালয় থেকে জগন্নাথপুরের ১২০জন মুক্তিযোদ্ধার পরিবার সম্মানী ভাতা গ্রহণ করছেন। নতুন তালিকায় অর্ন্তভুক্ত ছয় মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতার তালিকা আমরা পাইনি। তাঁদের বিষয়ে আমাদের কিছু জানাও নেই।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা