kalerkantho

বুধবার । ২৯ জানুয়ারি ২০২০। ১৫ মাঘ ১৪২৬। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

‘চট্টগ্রামে বিজয় স্তম্ভ ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর স্থাপন হবে’

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:৪২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘চট্টগ্রামে বিজয় স্তম্ভ ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর স্থাপন হবে’

চট্টগ্রামে বিজয় স্তম্ভ ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর স্থাপন করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় নগরের আউটার স্টেডিয়ামে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদ আয়োজিত স্মৃতিচারণামূলক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, “‘জয় বাংলা’ কখনো কোনো দলীয় বা রাজনৈতিক স্লোগান ছিল না। এটা ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রাণিত হওয়ার মন্ত্র। দেশকে হানাদারমুক্ত করার মন্ত্র। একে জাতীয় স্লোগান হিসেবে ব্যবহারের অভিমত সম্প্রতি হাইকোর্ট দিয়েছেন। জাতীয়ভাবে জয় বাংলা চর্চা করার প্রয়োজন ছিল। তা করতে আমরা ব্যর্থ হয়েছি।”

মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্দেশে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আরো বলেন, মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদ্যাপন—এ দুটি জাতীয় অনুষ্ঠান মিলে আগামী দুই বছর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ সময়। এ সময় মুক্তিযোদ্ধারা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস আগামী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরবেন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সর্বত্র ছড়িয়ে দেবেন।

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘১৯৭১ ও ’৭৫-পরবর্তী ঘটনা আমরা ভুলতে বসেছি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হারিয়ে ফেলছি। এভাবে চলতে পারে না। হানাদারদের দোসর রাজাকার, আলবদরদের ভুলে যাওয়া যাবে না। তাহলে মুক্তিযুদ্ধ অসম্পূর্ণ থেকে যাবে।’

তিনি বলেন, এতিমের টাকা চুরি করে একজন জেল খাটছেন। জেল খাটার বিষয়ে তাদের নেতারা বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তুলনা করছে, যা অত্যন্ত লজ্জার। কেননা, বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য, মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য আন্দোলন করে জেল খেটেছেন। এ দুই জেল খাটার মধ্যে কোনো তুলনা চলে না।

মুক্তিযোদ্ধা এম এ মনসুরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক আজম খসরু, আওয়ামী লীগের উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, নগর আওয়ামী লীগের শ্রম সম্পাদক আবুল আহাদ প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা