kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

পটিয়ায় অনুমোদনহীন সিলিন্ডারের দোকানে বিস্ফোরণ, দগ্ধ ৫

পটিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৯:৩০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পটিয়ায় অনুমোদনহীন সিলিন্ডারের দোকানে বিস্ফোরণ, দগ্ধ ৫

চট্টগ্রামের পটিয়ায় গ্যাস সিলিন্ডারের ওজনে কারচুপির সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ৫ জন দগ্ধ হয়।

গতকাল মঙ্গলবার ১০ ডিসেম্বর সকাল সোয়া ৯টায় উপজেলার বৈলতলী সড়কের কচুয়াই পটিয়া বাইপাস মোড় এলাকায় আবু সৈয়দের বাড়ির সামনে একটি সেমিপাকা ঘরে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে পটিয়া হাসপাতালে এবং সেখান থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এদের মধ্যে চন্দনাইশ রৌশনহাট সৈয়দাবাদ এলাকার বাসিন্দা আব্দুল জলিলের ছেলে আবু ছালেকের (২৬) অবস্থা আশংকাজনক বলে জানা গেছে।

আগুনে দগ্ধ অন্যরা হলেন, পটিয়া উপজেলার কচুয়াই গ্রামের মো. আব্দুল মোনাফের ছেলে আবু সৈয়দ (৪০), চন্দনাইশের এনায়েত হোসেনের ছেলে মো. রহিম (৩৩), একই উপজেলার মীর আহাম্মদের ছেলে মো. আলী (৩২) ও আব্দুল মাহবুবের ছেলে সাজ্জাদ (২০)।

পটিয়া ফায়ার সার্ভিসের টিম লিডার হাবিলদার সাবের আহমদ বলেন, আগুনের খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুটি গাড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছে ৩০ মিনিটের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। ধারণা করা হচ্ছে গ্যাস সিলিন্ডারের একটি বোতল থেকে আরেকটিতে গ্যাস ভরার সময় সিলিন্ডার লিক হয়ে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পারে। তবে দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরে বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছেন আহতরাসহ পাশের বাড়ির লোকজন।

ঘটনাস্থল থেকে ৫ জনকে দগ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। খবর পেয়ে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) আফরাজুল হক টুটুল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, আগুন লাগার প্রকৃত বিষয় আমরা অনুসন্ধান করছি।

পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বোরহান উদ্দিন বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লেগে এ দগ্ধের ঘটনা ঘটতে পারে। তিনি পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন বিহীন গ্যাস সিলিন্ডার মজুদসহ ঘটনাটি খতিয়ে দেখছেন বলে জানান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাবিবুল হাসান জানান, অনুমোদনহীন ভাবে সেইখানে গ্যাস সিলিন্ডার মজুদ করে ব্যবসা করার দায়ে গত প্রায় পাঁচ মাস আগে ব্যবসায়ী টিপুকে একমাসের জেল ও এক লাখ টাকা জরিমানা করে ব্যবসাটি তখন বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। গতকাল সোমবার বাড়িটিতে তিনি তালা লাগিয়ে দেন। এসময় টিপুর সঙ্গে ইউএনও মুঠোফোনে কথা বললে, তাঁকে টিপু জানায়, মোবাইল ফোন চার্জার বিস্ফোরণে এ ঘটনা ঘটেছে। তবে পুলিশ ও প্রশাসন বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে জানা গেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা