kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

ওসির নাম করে চাঁদাবাজি, আওয়ামী লীগ নেতাসহ গ্রেপ্তার ৩

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৭:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ওসির নাম করে চাঁদাবাজি, আওয়ামী লীগ নেতাসহ গ্রেপ্তার ৩

যশোরের কেশবপুরে ওসির নামে চাঁদাবাজির অভিযোগের মামলায় পুলিশ উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা শহিদুল ইসলামসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

শনিবার (৭ ডিসেম্বর) উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের আব্দুল গফফার সানা বাদী হয়ে ওই মামলাটি করেন। সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা শহিদুল ইসলাম গ্রেপ্তার হওয়ায় রবিবার কেশবপুর সদরসহ উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও এ বিষয়টি নিয়ে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ২ ডিসেম্বর শ্রীরামপুর গ্রামের মৃত আব্দুল গনি সানার ছেলে আব্দুল গফফার সানাকে নাশকতা মামলা থেকে রক্ষা করার আশ্বাস দিয়ে কেশবপুর থানার ওসির নামে ১৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করায় উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের আব্দুল মালেক সানার ছেলে মো. আছলাম সানা (৩০), একই গ্রামের নিছার মহলদারের ছেলে লালু মহলদার (৩৫) ও দেউলী গ্রামের মৃত মাদার গাজীর ছেলে শহিদুল ইসলামের (৬১) নামে মামলা করেন। মামলার আসামি আছলাম সানা ও লালু মহলদার বাদীর নিকট থেকে জোরপূর্বক ৯ হাজার ৫০০ টাকা চাঁদা আদায় করেন। চাঁদা দাবির ঘটনাটি মোবাইল ফোনে রেকর্ড করে রাখা হয়।

শহিদুল ইসলাম মজিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেন। এখনও তিনি ওই ইউনিয়নসহ উপজেলায় আওয়ামী লীগ নেতা হিসেবে পরিচিত।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা বলেন, গত ২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে নির্বাচন করায় ইউনিয়ন সভাপতির পদ থেকে শহিদুল ইসলামকে বহিষ্কার করা হয়।

এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবু সাঈদ বলেন, পুলিশের নামে চাঁদা আদায়ের অভিযোগে মামলা হওয়ায় তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতদের রবিবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।   

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা