kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

ডামুড্যায় রাস্তা ভেঙে যান চলাচল বন্ধ

সংস্কারের পরই সড়কে ফাটল, দুর্ভোগে এলাকাবাসী

ডামুড্যা (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি   

৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৭:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সংস্কারের পরই সড়কে ফাটল, দুর্ভোগে এলাকাবাসী

শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা উপজেলার সিড্যা ডামুড্যা সড়কের শহর রক্ষা বাঁধ ভেঙে যানচলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে করে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে স্কুল, কলেজ ও মাদরাসা শিক্ষার্থীসহ জনসাধারণের। দুঘটনার শিকার হচ্ছে বিভিন্ন যানবাহন।

ডামুড্যা জয়ন্তী নদীর কোলঘেঁষে ২০১৫-২০১৬ ডামুড্যা পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের শহর রক্ষা বাঁধ সড়কটি নির্মিত হয়। এটি পৌরসভার মধু ঢালির বাড়ি হয়ে মোল্লা বাড়ি পর্যন্ত ১৩০০ মিটার প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, সংস্কার করার কিছুদিন পরই সড়কে ফাটল ধরে তখনই সড়কটি চলাচলের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। বিশেষ করে ডামুড্যা বড় ব্রিজ থেকে ৩ নম্বর মোল্লাবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত বাঁধের রাস্তাটি তিন মাসও টেকেনি। বাইরে থেকে ট্রলারে করে মাটি এনে ভরাট করার কথা থাকলেও নদীর পাড় থেকে মাটি নিয়ে রাস্তার ধার ভরাট করা হয়। পরে সড়কটির বিভিন্নস্থানে ফাটল ধরে কিছু কিছু অংশ নদিতে ভেঙে পড়ে যায়।

সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ১৩০০ মিটার রাস্তার বিভিন্ন জায়গা ফেটে গেছে। বড় বড় ডালাইর পাট ৮ থেকে ১০টি নদীতে পড়ে আছে। মানুষ হাঁটার জন্য সরু পথ তৈরি করেছে। বেপারী বাড়ির মসজিদ নদীতে বিলীনের পথে। বিভিন্ন জায়গায় মাটি দিয়ে রাস্তা করা হয়েছে পায়ে হেঁটে যাওয়ার জন্য।

ডামুড্যা বাজারে বাজার করতে আসা মো. ইলিয়াস (৫৫) ও সেলিম মির (৪৫) বলেন, সড়কটি দ্রুত সময়ের মধ্যে সংস্কার করা হলে আমাদের দুর্ভোগ লাঘব হবে। সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হওয়ায় এ এলাকার লোকজনের অনেক ঘুরে শহরে যাতায়াত করতে হচ্ছে।

রিকশা চালক জামাল আকন (৪০) ও অটোচালক আজম ফকির ( ৪৫) বলেন, সড়কটি ভেঙে যাওয়ায় আমাদের অনেক সমস্যা হচ্ছে। এ সড়ক দিয়েই ডামুড্যা বাজারে, মাদরাসা ও স্কুলে যেতে হয়।

স্কুল শিক্ষার্থী হাবিবুর, আক্তার, সানিয়া, রোবিয়া বলে, বেশ কয়েকদিন ধরে এটির ওপর দিয়ে চলাচল করেছি ঝুঁকি নিয়ে। কিন্তু এটি ভেঙে পড়ার পর থেকে এখন ঘুরে স্কুলে আসতে হয়। অনেক সময় বাজার থেকে আসত হয় আমাদের। তখন গাড়ি পাওয়া যায় না।

ডামুড্যা পৌরসভার মেয়র হুমায়ুন কবির বাচ্চু ছৈয়াল বলেন, সড়কের টেন্ডার হয়েছে। ঠিকাদরকে কাজটি দ্রুত করার জন্য চিঠি দিয়েছি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা