kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

ঠাকুরগাঁওয়ে টিসিবির বিরুদ্ধে নষ্ট পেঁয়াজ বিক্রির অভিযোগ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি   

৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৮:২১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঠাকুরগাঁওয়ে টিসিবির বিরুদ্ধে নষ্ট পেঁয়াজ বিক্রির অভিযোগ

ঠাকুরগাঁওয়ে টিসিবির বিরুদ্ধে পচা পেঁয়াজ বিক্রির অভিযোগ করেছেন ভোক্তারা। বুধবার দুপুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে পেঁয়াজ বিক্রির কার্যক্রম উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম। এ সময় ৪৫ টাকা দরে এক কেজি পেঁয়াজ কেনার জন্য দীর্ঘ এক থেকে দেড়ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে পেঁয়াজ কিনেছেন ক্রেতারা। তবে ক্রেতাদের অভিযোগ এক কেজি পেঁয়াজের অর্ধেকই একবারেই নষ্ট এবং পচা।

পেঁয়াজ কিনতে আসা লাইনে থাকা আশ্রম পাড়া মহল্লার মোহাম্মদ হিরা জানান, টিসিবির বড় সাইজের এক কেজিতে ৫ থেকে ৭টি পেঁয়াজ উঠছে। সে পেয়াজের মধ্যে ৩ থেকে ৪টিই পচা দেওয়া হচ্ছে। ডিলারকে এ বিষয়ে জানিয়ে কোনো লাভ হচ্ছে না।

আউলিয়াপুর ইউনিয়নের আব্দুল্লাহ অভিযোগ করেন, এক কেজিতে হাফ কেজি পেঁয়াজই পচা দেওয়া হচ্ছে। বিক্রেতাকে অভিযোগ করলে তিনি এ বিষয়ে কোনো কথাই শুনতে চাচ্ছেন না। উল্টো ক্রেতাদের সাথে খারাপ ব্যবহার করছেন। বাধ্য হয়ে যে পেঁয়াজ নিয়েছিলাম অনেক চেষ্টা করে তা আবার ফেরত দিয়েছি।

সদর উপজেলার চিলারং ইউনিয়নের সুদেব রায় জানান, দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে এক কেজি পেঁয়াজ পেয়েছি, কিন্তু পলিথিন খুলে দেখি অর্ধেকেরও বেশি পেঁয়াজ নষ্ট এবং পচা। এমন অবস্থা হলে আমরা সাধারণ মানুষ কোথায় যাবো।

আশ্রম পাড়ার বাসিন্দা এনজিও কর্মী মেরি বেগম জানান, বাজারে ২০০ টাকা করে পেয়াজ কিনতে হচ্ছে। টিসিবির পেয়াজ ৪৫ টাকাতেই পেলাম। এককেজিতে কিছু নষ্ট পেয়াজ বের হচ্ছে, কিন্তু তার পরও এই দুর্মুল্যের বাজারে কম দামে পিয়াজ কিনে ঠকা হচ্ছে না।

ক্রেতাদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে পচা পেঁয়াজ বিক্রির বিষয়ে টিসিবির ডিলার সুব্রত সরকারের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, চার দিনের জন্য তার নামে চার টন পেঁয়াজ বরাদ্দ হয়েছে। প্রতি একজন ক্রেতার কাছে ৪৫ টাকা দরে এক কেজি করে পেঁয়াজ বিক্রয় করা হচ্ছে। ক্রেতাদের অভিযোগ পুরোপুরি সত্য নয়, রংপুর গাডাউন থেকে বস্তায় যে পেঁয়াজ দেওয়া হয়েছে তা এখানে দেওয়া হচ্ছে। প্রতি বস্তায় বেশ কিছু নষ্ট পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে। যার ভাগ্যে য পরবে, এখানে বাছাই করে পেঁয়াজ বিক্রির কোনো সুযোগ নেই।

জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম জানান, সাধারণ মানুষ শান্তিপূর্ণ পরিবেশে টিসিবির পেঁয়াজ কিনছেন। পচা পেয়াজের বিষয়ে এখন পর্যন্ত কেউ অভিযোগ করেন নাই। এমন ঘটে থাকলে তা তদন্ত করে  প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা