kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

জন্মসনদে বয়স বাড়িয়ে বাল্যবিয়ে পড়ালেন মুয়াজ্জিন

আলমডাঙ্গা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি   

৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৭:২৮ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



জন্মসনদে বয়স বাড়িয়ে বাল্যবিয়ে পড়ালেন মুয়াজ্জিন

জন্মসনদে বয়স বাড়িয়ে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গার হাঁটুভাঙ্গা গ্রামের ৯ম শ্রেণি পড়ুয়া সুমিকে বাল্যবিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। নিকাহ রেজিস্ট্রার না হওয়া সত্ত্বেও হাটবোয়ালিয়া জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন মহাবুল ইসলামের বিরুদ্ধে এ বিয়ে পড়ানোর অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, আলমডাঙ্গা উপজেলার ভাংবাড়িয়া ইউনিয়নের হাটুভাঙ্গা গ্রামের শহিদুল ইসলামের মেয়ে ছাফিয়া আক্তার সুমির বিয়ে দেওয়া হয়েছে গত ১ ডিসেম্বর পার্শ্ববর্তী কুয়াতলা গ্রামের মৃত আব্দুস সালামের ছেলের সাথে।

সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক শরিফুজ্জামান জানান, বিদ্যালয়ে রক্ষিত রেকর্ডে ছাফিয়া আক্তার সুমির বয়স ১৫ বছর ৫ মাস। অন্যদিকে, জন্মসনদে বয়স দেখানো হয়েছে প্রায় ১৯ বছর ৮ মাস ২২ দিন। এ জন্মসনদে সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান কাউসার আহমেদ বাবলু স্বাক্ষর করেছেন এ বছর ২৫ নভেম্বর।

মহাবুল ইসলাম জানান, তিনি বাল্যবিয়ে পড়াননি। এলাকার বাইরে তিনি বিয়ে পড়ান না বলেও দাবি করেছেন।

এলাকাসূত্রে জানা যায়, ভাংবাড়িয়া ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার মোহাব্বত আলী। কিন্তু হাটবোয়ালিয়া জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন মহাবুল ইসলাম ছামিয়া আক্তার সুমির বাল্যবিয়ে পড়িয়েছেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা