kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

রাস্তার দখল নিয়ে বিরোধের জের

শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি   

৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:৫০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা

ছবি: কালের কণ্ঠ

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় রাস্তার জমি দখল নিয়ে পূর্ব বিরোধের জেরে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সগির আলীর পরিবারের সদস্য ও স্বজনদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের পাঁচজন আহত হয়েছেন। বর্তমানে তারা কুলাউড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

আহতরা হলেন- শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সগির আলীর ছোট ভাই আব্দুস সবরের স্ত্রী ছইফা বেগম (৫০), ছেলে ফয়জুল হক (৩১), লিটন আহমদ (২৭), মামাতো ভাই আব্দুল মনাফের স্ত্রী ছয়নু বেগম (৬০) ও ছেলে রাজিব আহমদ (২৫)। খবর পেয়ে কুলাউড়া থানার এস আই কানাই লাল চক্রবর্তী হাসপাতালে যান। ২ ডিসেম্বর সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টায় উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের ভাটগাঁও গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

জানা যায়, উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের ভাটগাঁও গ্রামের বাসিন্দা আব্দুস সালামের বাড়িতে রাস্তার জায়গায় বেড়া দেওয়া নিয়ে পূর্ব বিরোধের জেরে একই গ্রামের বাসিন্দা জবান আলীর ছেলে কুতুব আলী, তৈমুছ আলী, ইদ্রিস আলী ও তাদের চাচা উসমান আলীসহ ২০-২৫ জন মুক্তিযোদ্ধা সগির আলীর পরিবারের সদস্যদের ওপর দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। 

এদিকে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সগির আলীর পিতা আব্দুল গফুরের নামে ভাটগাঁও গ্রামে ৬৫ শতক জমি ছিল। ৪০ বছর পূর্বে এই বাড়িতে সগির আলীর ভাই আব্দুস সবরের পরিবারের লোকজন বসবাস করতেন। প্রতিপক্ষরা সেই সময় ওই ৬৫ শতক জমি জোরপূর্বক দখল নিয়ে আব্দুস সবরের পরিবারের লোকজনকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে বেশ কয়েকবার জনপ্রতিনিধিসহ উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের উপস্থিতিতে সালিসি বৈঠকও হয়েছিল। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় উভয়পক্ষের কাগজপত্র উপস্থাপনের জন্য। কিন্তু প্রতিপক্ষরা সঠিক কাগজপত্র দেখাতে পারেনি।

সর্বশেষ প্রায় ২০ বছর থেকে একই গ্রামের আব্দুস সালামের বাড়িতে বসবাস করে আসছেন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যরা। সেই আব্দুস সালামের বাড়ির রাস্তাও প্রতিপক্ষরা জোরপূর্বক দখলে নেন এবং সোমবার বিকেলে বাড়ির রাস্তায় প্রতিপক্ষরা বেড়া দেওয়ার চেষ্টা করেন। এ সময় মুক্তিযোদ্ধার স্বজনরা এতে বাধা দিলে সংঘর্ষ বাঁধে।

এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষ কুতুব আলীর সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার ছেলে হারুন মিয়া বিরোধপূর্ণ রাস্তাটি তাদের দাবি করে বলেন, আব্দুস সালামের সঙ্গে আমাদের বিরোধ। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সঙ্গে আমাদের কোনো বিরোধ নেই। পরে কথা বলবেন বলে ফোন রেখে দেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য কিবরিয়া হোসেন খোকন বলেন, রাস্তার দখল নিয়ে আব্দুস সালাম ও কুতুব আলী পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলছিল। বিষয়টি বিচারাধীন। সমাধানের জন্য আব্দুস সালাম বারবার তাগিদ দিলেও কুতুব আলী কাগজ দেখাতে ব্যর্থ হচ্ছেন। সেই বিরোধের জন্য সংঘর্ষ বাঁধে।

পৃথিমপাশা ইউপি চেয়ারম্যান নবাব আলী বাকর খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, তিনি সাবেক এক ইউপি সদস্যের মাধ্যমে বিষয়টি জেনেছেন। জায়গা-জমি নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছে। একাধিকবার সালিশি বৈঠকও হয়েছে।

কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইয়ারদৌস হাসান বলেন, এ ঘটনাটি জেনেছি। এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। মামলা হলে তদন্তক্রমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা