kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

অতিরিক্ত সচিবের বিরুদ্ধে খেলার মাঠ ও বিল দখলের অভিযোগ

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি   

২২ নভেম্বর, ২০১৯ ১৮:২৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অতিরিক্ত সচিবের বিরুদ্ধে খেলার মাঠ ও বিল দখলের অভিযোগ

ঢাকার ধামরাইয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে বিল ও খেলার মাঠ দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর তাই বিল ও খেলার মাঠ রক্ষার দাবিতে শুক্রবার ধামরাই-কালিয়াকৈর আঞ্চলিক মহাসড়কের আমতলা বাসস্ট্যান্ডে সাত গ্রামের বাসিন্দারা মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে।

জানা গেছে, ধামরাইয়ের ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের মোড়া মৌজার বড় বিল, ছোট বিল, ঘোড়ামারা বিল ও বিল সংলগ্ন খেলার মাঠে কয়েকশ বিঘা জমি রয়েছে। এসব বিলে যুগযুগ ধরে কয়েকটি গ্রামের মানুষ মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। এছাড়া বিলের পানি বোরো চাষে ও সবজি ক্ষেতে সেচের কাজে ব্যবহার করে আসছে এলাকাবাসী। এসব বিল ও খেলার মাঠ দখলের জন্য ওঠে পড়ে লেগেছে ধামরাইয়ের শরীফবাগ গ্রামের মৃত তাইজুদ্দিন বেপারীর ছেলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমানও তার সহযোগী মোকছেদ আলী মুকছু, স্থানীয় ইউপি সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন, হুমায়ন ও খোরশেদ আলমসহ কয়েকজন। 

এদিকে, গত শনিবার হাবিবুর রহমান তার দলবল নিয়ে ওই জমি দখল করতে যায়। এতে স্থানীয় দক্ষিণ দীঘল গ্রামের আব্দুল কাদের দেওয়ানের ছেলে আব্দুল মান্নানসহ গ্রামের কয়েকজন বাধা দেন। এ সময় তোপের মুখে পড়ে চলে যান সচিব। পরে ওইদিনই হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে ধামরাই থানায় আব্দুল মান্নানের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। এতে ক্ষুদ্ধ হন গ্রামের সাধারণ মানুষ। পরে সচিবের হাত থেকে বিল ও খেলার মাঠ রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন করেন দীঘল গ্রাম, বৈষ্টবদিয়া, মোরারচর, মারুমডালি, মালঞ্চসহ সাতটি গ্রামের সতাধিক মানুষ।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ধামরাইয়ের ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সুলতান আহমেদ, বিল ও মাঠ রক্ষা আন্দোলন কমিটির আহ্বায়ক অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মজিবুর রহমান, যুগ্ম আহ্বায়ক সোহরাব হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মজিদ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন, ভাড়ারিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মানসুর রহমান, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ফারুক ভান্ডারী, স্থানীয় রবিউল করিম রুবেল, বোরহান উদ্দিন প্রমুখ। 

মানবন্ধনে তারা বলেন, মোড়া মৌজার বিল ও খেলার মাঠ দখলের জন্য উঠে পড়ে লেগেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান। কিন্তু জীবন থাকতে এসব বিলের জমি ও মাঠ দখল করতে দেওয়া হবে না অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমানকে। বিল ও খেলার মাঠ যাতে সচিব হাবিবুর রহমান দখল করতে না পারেন সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী, স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী।

এই জানতে চাইলে অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান জানান, বিলের মধ্যে এসএ ৬০৬ ও আরএস ৬২০ দাগের একশ ২০ শতাংশ জমি বায়নাসূত্রে তার স্ত্রী নাছিমা হাবিব মালিক হয়েছেন। ওই জামি দখল সরেজমিনে যান তিনি। কিন্তু এলাকাবাসী তাকে বাধা দেন। সেই সঙ্গে খারাপ আচরণও করেন। তিনি বলেন, আমি কারো জমি দখল করিনি। এলাকার লোকজন খারাপ আচারণ করায় ওই গ্রামের আব্দুল মান্নানের নামে থানায় জিডি করেছি।

এর আগে ২০১৪ সালে ১১ জুন তৎকালীন ধামরাই উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রেহেনা আক্তার একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন, ধামরাইয়ের মোড়া মৌজার এসএ ৬০৬ ও আরএস ৬২০ দাগের দু’শ ৩৯ শতাংশ জমি বিল শ্রেণি হিসেবে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে ডেপুটি কমিশনার ঢাকা’র নামে রেকর্ডভুক্ত রয়েছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা