kalerkantho

শনিবার । ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৬ রবিউস সানি               

কমলগঞ্জে পাহাড়ি ছড়া কেটে বালু হরিলুটের মহোৎসব

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতা   

২২ নভেম্বর, ২০১৯ ১৫:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কমলগঞ্জে পাহাড়ি ছড়া কেটে বালু হরিলুটের মহোৎসব

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন পাহাড়ি ছড়া হতে দেদারসে চলছে বালু উত্তোলনের মহোৎসব। এসব বালু এলাকার প্রভাবশালী মহলের ইশারায় তোলা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এতে করে  সরকার যেমন রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, তেমনই গ্রামীণ সড়ক ও ছড়ার বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। প্রশাসন জেনেও কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না।

সরেজমিন দেখা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার সুনছড়া, কামারছড়া, লাউয়াছড়া, জপলাছড়া, লঙ্গুছড়া, ধামালিছড়া, দেওছড়া, লাঘাটা ছড়া হতে প্রতিনিয়ত অবৈধ আর অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। 

স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহলের ইশারায় ছড়া হতে বালু উত্তোলন করে ট্রাকযোগে বালু পরিবহন ও বিক্রি করা হচ্ছে। প্রশাসনের কয়েকটি অভিযানের পরও থামানো যায়নি বালু উত্তোলন। মানা হচ্ছে না কোনো আইন। ভেঙে ফেলা হচ্ছে ছড়ার পাড় ও গ্রামীণ রাস্তা। ছড়া থেকে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনের ফলে ছড়ার দু'পাশ ক্রমশ প্রশস্ত হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পার্শ্ববর্তী ও চা বাগানের রাস্তাঘাট। 

এছাড়া কামারছড়ায় চায়ের টিলাভূমি, ছড়ার বাঁধ কেটে প্রকাশ্য দিবালোকে ট্রাক ও ট্রাক্টরযোগে সিলিকা বালু লুটপাটের হিড়িক চলছে। ছোট ছড়াগুলোতে ব্যবহৃত হচ্ছে বোম মেশিন। ফলে পরিবেশ-প্রতিবেশ ছাড়াও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয়রা। এছাড়াও ধলাই নদীর ইসলামপুর নামক এলাকায় বালু তুলে ব্রিকফিন্ড ভরাট করছে একটি মহল।

কমলগঞ্জের সদর ইউনিয়নের আব্দুল মছব্বিরসহ স্থানীয়রা বলেন, লঙ্গুছড়া থেকে বালু উত্তোলনের ফলে ছড়ার বাঁধ ও কবরস্থানটিও ভেঙে পড়ছে।  বালু উত্তোলনের বিষয়টি এমন পর্যায়ে গিয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ফলে ছড়ার বাঁধ ধসে পড়ছে। অথচ এসব পাহাড়ি ছড়া থেকে বালু উত্তোলনে উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।  

মৌলভীবাজার পরিবেশ সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক নূরুল মোহাইমীন মিল্টন বলেন, পাহাড়ি ও চা বাগানের ছড়ার গাঁ ঘেষে টিলা ও ছড়ার বাঁধ কেটে বালু উত্তোলন জীববৈচিত্র্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। অবৈধ ও পরিকল্পনাহীন যত্রতত্র বালু উত্তোলন পরিবেশের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। মৌলভীবাজারে পাহাড়ি ছড়া থেকে বালু উত্তোলনে উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা হলেও এর বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।
 
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক বলেন, খবর পাওয়ার পরই আমাদের পক্ষ থেকে অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। ইতোমধ্যে বালুভর্তি ট্রাক আটক করে জরিমানাও আদায় করা হয়েছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা