kalerkantho

শুক্রবার । ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৫ রবিউস সানি          

পিস্তল ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার

ডাকাতের হামলায় ৪ পুলিশ আহত, আটক ২

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি    

২১ নভেম্বর, ২০১৯ ১০:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ডাকাতের হামলায় ৪ পুলিশ আহত, আটক ২

আহত পুলিশ সদস্যদের তিনজন। ছবি: কালের কণ্ঠ

হবিগঞ্জের মাধবপুর চেকপোস্টে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে একটি সংঘবদ্ধ ডাকাতদল। এতে এক এএসআইসহ পুলিশের চার  সদস্য আহত হয়েছেন।

আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন এএসআই জিয়াউর রহমান এবং কনস্টেবল রুহুল আমিন ও সানোয়ারকে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাঁদের মধ্যে কনস্টেবল রুহুল আমিনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাঁকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অপর কনস্টেবল ফয়েজকে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

গতকাল বুধবার (২১ নভেম্বর) রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার সুরমা চা-বাগান এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

                                               আটক দুই ডাকাতের একজন। ছবি : কালের কণ্ঠ

পুলিশ জানায়, সন্ধ্যা থেকে এএসআই জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ পাহাড়ঘেড়া অঞ্চল ঢাকা-সিলেট পুরাতন মহাসড়কের সুরমা চা-বাগান এলাকায় চেকপোস্ট বসান। একপর্যায়ে কয়েকজন যুবক একটি মোটরসাইকেল ও একটি প্রাইভেট কার নিয়ে আসার সময় তাদেরকে তল্লাশির চেষ্টা করা হয়। হঠাৎ সংঘবদ্ধ ডাকাতদলটি পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এ সময়  ডাকাত ও পুলিশ সদস্যদের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। একপর্যায়ে ডাকাতদল পুলিশ সদস্যদের মারধর করে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে মোটরসাইকেল আরোহী দুই ডাকাতকে দুই  রাউন্ড গুলি ও পিস্তলসহ আটক করা হয়।

আটকরা হলেন নরসিংদী সদরের আব্দুস সোবহান সুমন ও একই জেলার শিবপুরের বায়জিদ বোস্তামী। তাদের কাছ থেকে একটি চায়না পিস্তল ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো. গোলাম দস্তগীর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, এ ঘটনায় জড়িত অন্য ডাকাতদের ধরতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। শিগগির তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হবে।

হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. স্নিগ্ধ জ্যোতি চৌধুরী বলেন, তিনজনের মধ্যে রুহুল আমিন নামের এক পুলিশ সদস্যের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, ঘটনার খবর পেয়ে হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহ আহত পুলিশ সদস্যদের দেখতে হাসপাতালে যান এবং তাদেরকে সান্ত্বনা দেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা