kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

শেরপুরের কোনও রুটেই চলছে না যানবাহন

শেরপুর প্রতিনিধি    

২০ নভেম্বর, ২০১৯ ১২:৩৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শেরপুরের কোনও রুটেই চলছে না যানবাহন

দুই দিন আগে থেকে দূরপাল্লাসহ সব রুটে যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধের পর এবার আজ বুধবার (২০ নভেম্বর) ভোর থেকে পণ্যবাহী ট্রাক এবং অভ্যন্তরীণ সড়কে চলাচলকারী সিএনজিচালিত  অটোরিকশা চলাচলও বন্ধ রয়েছে।

আনুষ্ঠানিক ধর্মঘটের কোনও ঘোষণা না থাকলেও নতুন সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের দাবিতে পরিবহন শ্রমিকরা কর্মবিরতির নামে কৌশলে পরিবহন ধর্মঘট পালন করায় এতে যাত্রী সাধারণ চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছেন।

গতকাল মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) জেলা প্রশাসনের সঙ্গে স্থানীয় পরিবহন মালিক-শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বৈঠকে কর্মবিরতি প্রত্যাহার করার কথা জানালেও তা আর হয়নি। বরং সব রুটেই বাস চলাচল বন্ধ। 

সকাল ১০টার দিকে শহরের নাবীনগর বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে দেখা যায়, সারি সারি বাস স্ট্যান্ডে তালাবদ্ধ অবস্থায় রাখা হয়েছে। বাসের কাউন্টারগুলো বন্ধ রয়েছে। সেখানে অবস্থানকারী শ্রমিকরা জানান, নতুন সড়ক পরিবহন আইন পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত তারা গাড়ি চালাবেন না। দূরপাল্লার গন্তব্যের কয়েকজন যাত্রীকে বাস না চলায় মন খারাপ করে স্ট্যান্ড থেকে মলিন মুখে ফিরে যেতে দেখা যায়। 

বাসচালক হামিদ মিয়া (৫২) বলেন, সরকার আইন করেছে করুক। কিন্তু পাঁচ লাখ, দুই লাখ টাকা জরিমানা, এটা অসম্ভব। আমাদের যদি এত টাকা থাকতো, তাইলেতো আর গাড়ি চালাইতাম না। এই আইন পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত আমরা গাড়ি চালাবো না। আমরা এমন সিদ্ধান্তই নিয়েছি।

আরেক বাসচালক আব্দুল মিয়া বলেন, 'নতুন আইনের অসামঞ্জস্যতা দূর করতে হবে। আমরা একদিন গাড়ি চালিয়ে পাই খোরাকিসহ ৭০০-৮০০ টাকা। আর জরিমানা রাখছে লাখ লাখ টাকা। তাছাড়া আমরা মালিকের গাড়ি চালাই। আইনের সব ধারায় চালকের দায় ধরা হয়েছে। এখানে মালিকের কোনও দায় রাখা হয়নি। তাছাড়া জেল, মোটা টাকা জরিমানা, ফাঁসির দড়ি মাথায় নিয়েতো আর গাড়ি চালানো সম্ভব না।

শেরপুর জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মো. হামিদুর রহমান বলেন, 'আমরা শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে পরিবহন ধর্মঘট কিংবা কোনও ধরনের কর্মবিরতির ঘোষণা দেইনি। আমরা গাড়ি চালানোর জন্য চেষ্টা করছি। কিন্তু সাধারণ শ্রমিকরা ভয়ে গাড়ি চালাতে চাচ্ছে না।' 

জেলা বাস-কোচ মালিক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সুজিত ঘোষ বলেন, কোনও ধরনের বাস ধর্মঘট ডাকা হয়নি। নতুন সড়ক পরিবহন আইনে মোটা টাকা জরিমানা ও জেলখাটার ভয়ে বাস চালকরা গাড়ি চালাতে রাজি না হওয়ায় গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা