kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

কসবার ট্রেন দুর্ঘটনা

তূর্ণার চালকসহ তিনজনকে দায়ী করে আরেকটি প্রতিবেদন

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২০ নভেম্বর, ২০১৯ ০৪:১১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তূর্ণার চালকসহ তিনজনকে দায়ী করে আরেকটি প্রতিবেদন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় দুটি ট্রেনের সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনা তদন্তে গঠিত পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের উচ্চ পর্যায়ের কমিটি প্রতিবেদন দিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালকের (ডিজি) কাছে প্রতিবেদনটি জমা দেওয় হয়। প্রতিবেদনে দুর্ঘটনার জন্য আন্ত নগর ট্রেন তূর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেসের চালক, সহকারী চালক ও পরিচালককে (গার্ড) দায়ী করা হয়েছে। তাঁদের অবহেলার কারণে ভয়াবহ এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এর আগে গত শুক্রবার একই অঞ্চলের বিভাগীয় পর্যায়ে গঠিত কমিটিও তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। ওই প্রতিবেদনেও তূর্ণার ওই তিনজনকে দায়ী করা হয়েছে। এরই মধ্যে এই তিনজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তাঁরা হলেন চালক তাসের উদ্দিন, সহকারী চালক অপু দেব ও পরিচালক আব্দুর রহমান।

তবে এসব তদন্ত প্রতিবেদন অধিকতর যাচাই-বাছাই করা হবে বলে রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে। 

পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের উচ্চ পর্যায়ে চার সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রধান চিফ অপারেটিং সুপারিনটেনডেন্ট (সিওপিএস) মো. নাজমুল ইসলাম। অন্য তিন সদস্য হলেন চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার, চিফ সিগন্যাল অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ার ও চিফ ইঞ্জিনিয়ার।

প্রতিবেদন জমা দেওয়ার বিষয়ে জানতে গত রাতে তদন্ত কমিটির প্রধান মো. নাজমুল ইসলামের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। বেশ কয়েকবার ফোন ও খুদে বার্তা পাঠালেও তাঁর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, গত ১১ নভেম্বর রাত পৌনে ৩টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় মন্দবাগ রেলস্টেশনে সিলেট থেকে চট্টগ্রামমুখী আন্ত নগর উদয়ন এক্সপ্রেস ও চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী আন্ত নগর তূর্ণা এক্সপ্রেসের ভয়াবহ সংঘর্ষ হয়। এতে ১৮ জন নিহত হয়। আহত হয় অর্ধশতাধিক। সংঘর্ষে উদয়নের তিনটি বগি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। ওই দিনই দুর্ঘটনা তদন্তে স্থানীয় জেলা প্রশাসন একটি, বাংলাদেশ রেলওয়ে তিনটি ও রেলপথ মন্ত্রণালয় একটি কমিটি গঠন করে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা