kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

বৃদ্ধকে মারধরের বিচার চাওয়ায় ছেলে নাতিকে পিটিয়ে আহত

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:৩০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বৃদ্ধকে মারধরের বিচার চাওয়ায় ছেলে নাতিকে পিটিয়ে আহত

ছবি: কালের কণ্ঠ

লক্ষ্মীপুরে বৃদ্ধ আবদুস শহিদ হাওলাদারকে (১০২) মারধরের বিচার চাইলে দোকানের সাঁটার আটকে রেখে ছেলে ও নাতিকে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। সোমবার (১৮ নভেম্বর) সন্ধ্যায় সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের পশ্চিম বাজারের লিমা ফ্যাশনে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- বৃদ্ধ আবদুস শহিদের ছেলে নুরনবী (৫৫) ও নাতি রিপন (২৮)। তারা ভবানীগঞ্জের চরভূতা গ্রামের বাসিন্দা। আহতদেরকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

ভুক্তভোগী পরিবার সূত্র জানায়, চরভূতা এলাকায় বৃদ্ধ আবদুস শহিদের ঘরের পাশে খোলা জায়গায় স্থানীয় শিশু-কিশোররা খেলাধুলা করে। এতে বিভিন্ন সময় ক্রিকেট বল ও ফুটবল ঘরের টিনসহ আশপাশের মানুষের শরীরে পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। 

সোমবার বিকেলেও ক্রিকেট খেলতে গেলে তাদের গরুর শরীরে গিয়ে বল পড়ে। এতে বৃদ্ধের ছোট ছেলে শফিকের স্ত্রী রেখা বলটি কেটে ফেলে। ক্ষিপ্ত হয়ে কয়েকজন কিশোর তাদের ঘরে গিয়ে বৃদ্ধকে মারধর করে। 

এ ঘটনায় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য (মেম্বার) মন্তাজ হোসেনের কাছে বিচার চেয়ে অভিযোগ করা হয়। বিষয়টি মিমাংসার জন্য স্থানীয় পশ্চিম বাজারে মেম্বার উভয় পক্ষকে ডাকেন। কিন্তু মেম্বার আসার আগেই অভিযুক্তদের অভিভাবক কাদের, রনি, তানভীর ও তানজীদসহ উভয় পক্ষ ঘটনাস্থল পোঁছায়। পরে তারা নুরনবী ও রিপনকে দোকানের সাঁটার আটকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে। 

সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জয়নাল আবেদিন বলেন, আহতদেরকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। চোখ-মুখসহ তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখমের চিহ্ন রয়েছে।

ইউপি সদস্য মন্তাজ হোসেন বলেন, বৃদ্ধকে মারধরের ঘটনায় উভয়পক্ষকে ডাকা হয়েছিল। কিন্তু আমি আসার আগেই বৃদ্ধের ছেলে-নাতিকে পেটানো হয়েছে। তবে বিষয়টি আমি মিমাংসা করার চেষ্টা করছি।

লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, ঘটনাটি শুনেছি। তবে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি বিষয়টি মিমাংসার জন্য দায়িত্ব নিয়েছেন। এরপরও যদি থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়, তাহলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা