kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

বাবার সঙ্গে অভিমান করে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রের আত্মহত্যা

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:৪২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাবার সঙ্গে অভিমান করে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রের আত্মহত্যা

প্রতীকী ছবি

কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন মধ্যবাড়ালিয়া এলাকায় বাবার সঙ্গে অভিমান করে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রের আত্মহত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত কিশোরের নাম মো. নাইম হোসেন (১৭)। আজ সোমবার সন্ধ্যায় এ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার শেষে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

নিহতের মামা মো. মনির হোসেন জানান, তার ভাগ্নে নাইম এ বছর নুরুন্ডি আইডিয়াল স্কুল থেকে জেএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। তার বাবার নাম মো. ফরহাদ ফকির। তারা কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন নতুন ভাড়ালিয়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন। তাদের গ্রামের বড়ি বরিশাল জেলার মুলাদী থানার চরপদ্মা সফিপুর এলাকায়। তার বাবার ভাড়া বাসার নিচে একটি মুদি দোকান রয়েছে।

ভাগ্নে নাইম তার বাবার মুদি দোকান থেকে রবিবার সকালে ৩০-৩৫ হাজার টাকা না বলে নিয়ে যায়। বিষয়টি তার বাবা জানার পর আজ সোমবার দুপুরে খাওয়ার সময় নাইমকে জিজ্ঞাসা করে। প্রথমে নাইম অস্বীকার করে পরে স্বীকার করে। এ সময় বাবা নইমকে গালমন্দ করতে থাকলে বাবা-ছেলের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। এরপর নাইম ঘরে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দেয়। বাড়ির সবাই ধারণা করেছিল নাইম ঘরের ভেতর দরজা বন্ধ করে ঘুমিয়ে পড়েছে। সন্ধ্যা হয়ে যায় নাইম ঘরের দরজা খোলে না তখন তার মা আমেনা বেগম ডাকাডাকি করতে থাকেন। 

ছেলে নাইম ঘরের দরজা খোলে না ঘুম থেকেও উঠে না বিষয়টি সন্দেহ হলে মা নাইমের বাবাকে ডাকেন। বাবা দোকান থেকে উঠে এসে ডাকতে থাকেন এরপরও নাইম ভেতর থেকে কোনো সাড়া শব্দ না করলে ঘরের দরজা ভাঙ্গা হয়। ঘরের দরজা ভাঙ্গার পর নাইমকে আড়ার সঙ্গে ফাঁস লাগিয়ে ঝুলতে দেখে। তখন তারা নাইমকে সেখান থেকে নামিয়ে দ্রুত চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক নাইমকে মৃত বলে জানান।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার এস আই রেজাউল আমিন বর্ষণ জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মাধ্যমে খবর পেয়ে আমরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাই। সেখানে গিয়ে প্রথমে নিহত কিশোরের লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করি। এরপর লাশের ময়না তদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক‍্যাল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করি।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের জানান, বিষয়টি জানার পর খুব দুঃখ পেয়েছি। যে কিনা সবে মাত্র জেএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। তার রেজাল্টও দেখার আগ্রহ না করে বাবার সঙ্গে অভিমান করে আত্মহত্যা করে ফেলল। এটা নিশ্চয়ই সঙ্গ দোষের কারণে এমন হয়েছে। এ বিষয়ে নিহত কিশোরের মামা বাদী হয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা