kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

হিলি চেকপোস্টে পাসপোর্টধারী যাত্রীরা হয়রানির শিকার

হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি   

১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০৯:১৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হিলি চেকপোস্টে পাসপোর্টধারী যাত্রীরা হয়রানির শিকার

ফাইল ফটো

দিনাজপুরের হিলি চেকপোস্টে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)’র বিরুদ্ধে পাসপোর্টধারী যাত্রীদের হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে দিন দিন কমছে পাসপোর্টধারী যাত্রী পারাপার। সরকার রাজস্ব আয় হতে বঞ্চিত হচ্ছে।

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দেশের ২য় বৃহত্তম স্থলবন্দর। ভারতে যোগাযোগের জন্য ভৌগোলিক দিন থেকে হিলি বন্দর সুবিধাজনক হওয়ায় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ভারত ভ্রমণে পাসপোর্টধারী যাত্রীরা হিলি স্থলবন্দর দিয়ে যাতায়াত করে থাকেন।

ভারতে গমন ও আগমনের সময় হিলি চেকপোস্টে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা লাগেজ ও দেহ তল্লাশির নামে পাসপোটধারী যাত্রীদের নানাভাবে হয়রানি করেন। যাত্রীদের অকথ্য ভাষায় গালাগালির অভিযোগও রয়েছে। যাত্রীরা এ ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পরও কোনো প্রতিকার হচ্ছেনা বরং তাদের হয়রানির হার দিন দিন বাড়ছে। এতে করে কমে আসছে যাত্রী পারাপারের সংখ্যা। সরকারও রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে গত ১২ নভেম্বর হাকিমপুর উপজেলা আইন শৃংঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় পাসপোর্টধারী যাত্রীদের অযথা হয়রানি না করার জন্য হিলি চেকপোস্টে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) কম্পানি কমান্ডারকে বলা হয়। উপজেলা নিবার্হী অফিসার মো: আব্দুর রাফিউল আলম বলেন, পাসপোর্টধারী যাত্রীদের ব্যাগ বা লাগেজ তল্লাশির নামে অযথা হয়রানী যাতে না করা হয়। এর পরও থেমে নেই হিলি চেকপোস্টে বিজিবির হয়রানি।

হিলির স্থানীয় সাংবাদিক ও দক্ষিণ বাসুদেবপুর গ্রামের লুতফর রহমান বলেন, গত বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে তিনি দেশে আসার জন্য সেদেশের হিলি ইমিগ্রেশনে পাসপোর্ট এট্রিসহ সব কার্যক্রম সম্পন্ন করেন। এরপর তিনি চেকপোস্টের জিরোপয়েন্টে বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স-বিএসএফের তল্লাশি শেষে হিলি চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করলে সেখানে দায়িত্বরত বিজিবি সদস্যরাও ব্যাগ তল্লাশি করে পাসপোর্টটিও এন্ট্রি করেন। সেখান থেকে পাসপোর্টটি নিয়ে হিলি ইমিগ্রেশনের দিকে কয়েক গজ আসতে থাকলে এসময় বিজিবি’র গোয়েন্দা সদস্য মো: জাকির হোসেন (এফএস) এক বিজিবি সদস্যের মাধ্যমে লুৎফরকে পিছন দিক থেকে ডেকে নিয়ে পুনরায় ব্যাগ তল্লাশির পাশাপাশি তার শরীরেও তল্লাশী করতে থাকেন। তিনি আরও অভিযোগ করেন, বিজিবি সদস্যরা আমাকে পুনরায় তল্লাশীর নামে হয়রাণী করেছেন এবং শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে হাত দিয়ে তল্লাশী করেছেন। যা একজন পাসপোর্টধারী যাত্রীর জন্য বিব্রতকর এবং অসম্মানজনক। এব্যাপারে ঘটনাটির তদন্ত সহ তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য হিলি ইমিগ্রেশন ওসিসহ বিজিবি কম্পানি কমান্ডারের কাছে অভিযোগ করেছেন।

অপর এক ব্যবসায়ী তাহকিক হাসান তার অভিযোগে বলেন, তাকে বিজিবি হাবিলদার হাবিব ও নায়েক রাকিব তল্লাশির নামে হয়রানিসহ অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করেছেন। তিনি বলেন কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে মালামাল দিয়ে চালান দেওয়া হয় নতুবা গায়ে হাত তোলা হয়ে থাকে। তিনিও কাস্টমসসহ বিজিবির উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট এর বিচার চেয়ে লিখিত আবেদন করেছেন। কিন্তু প্রতিকার হচ্ছেনা।

হিলি সিপি ক্যাম্পের বিজিবি’র গোয়েন্দা সদস্য মো. জাকির হোসেন (এফএস) অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, সাংবাদিক লুৎফর রহমানের ব্যাগ তল্লাশি করা হয়েছে। তার শরীরে হাত দিয়ে তল্লাশি করা হয়নি।

এদিকে বিজিবির এখতিয়ার বর্হিভূত কার্যকলাপের কারণে পাসপোর্টধারী যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা