kalerkantho

সোমবার । ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ১ পোষ ১৪২৬। ১৮ রবিউস সানি                         

ঢাকা-পার্বতীপুর রুটে সব আন্ত নগর ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়

পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি   

১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০২:৪৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকা-পার্বতীপুর রুটে সব আন্ত নগর ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়

ঢাকা থেকে পার্বতীপুর হয়ে পশ্চিম জোনে চলাচলকারী সব আন্ত নগর ট্রেন অস্বাভাবিক দেরিতে যাতায়াত করছে। উল্লাপাড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনার পর থেকে শুরু হওয়া শিডিউল বিপর্যয় এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। 

ওই বিপর্যয়ের জেরে গত শনিবার রাতে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস গতকাল রবিবার বিকেল ৪টা ৫০ মিনিটে পার্বতীপুর স্টেশনে পৌঁছায়। অথচ সেটি গতকাল ভোর ৪টায় পার্বতীপুরে পৌঁছার কথা ছিল। 

একইভাবে পঞ্চগড় এক্সপ্রেস পার্বতীপুরে গতকাল সকাল ৭টা ৪০ মিনিটের জায়গায় সকাল সাড়ে ১১টায় পৌঁছায়। নীলসাগর এক্সপ্রেস পার্বতীপুর থেকে ঢাকা গেছে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা দেরিতে। এ ট্রেনটি চিলাহাটি থেকে ছেড়ে এসে প্রতিদিন রাত ১১টা ১০ মিনিটে পার্বতীপুর থেকে ঢাকা অভিমুখে ছেড়ে যায়। 

পঞ্চগড় থেকে পার্বতীপুর হয়ে ঢাকাগামী দ্রুতযান ও একতা এক্সপ্রেস দেরিতে চলাচল করলেও তা সহনীয় পর্যায়ে বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান। পঞ্চগড়-পার্বতীপুর-ঢাকার মধ্যে চলাচলকারী যাত্রীবাহী আন্ত নগর তিনটি ট্রেনের ক্ষেত্রে বিলম্ব সহনীয় পর্যায়ে থাকার কারণ ব্যাখ্যায় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, এগুলোর জন্য চারটি র্যাক রয়েছে বলে কম দেরি হচ্ছে। অন্যদিকে চিলাহাটি-পার্বতীপুর-ঢাকা রুটে চলাচলকারী নীলসাগর এক্সপ্রেসের জন্য মাত্র একটি র্যাক থাকায় সময় নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় না।

পার্বতীপুর স্টেশনের একটি সূত্র জানায়, লোকবল সংকটের কারণে ট্রেন শিডিউল রক্ষা করা এমনিতেই কঠিন, তার ওপর উল্লাপাড়ার দুর্ঘটনা বড় কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ওই সূত্র আরো জানায়, বাংলাদেশ রেলওয়েতে লোকবল ঘাটতি এক হাজার ২১৯ জন। ফলে প্রতিটি স্টেশনে ও ট্রেনে কর্মরত স্টাফদের অতিরিক্ত সময় দায়িত্ব পালন করতে হয় এবং এ কারণেই দুর্ঘটনার সংখ্যা বেড়ে গেছে।

ট্রেন দুর্ঘটনা ও শিডিউল বিপর্যয়ের কারণ জানতে পশ্চিম রেলের চিফ ইঞ্জিনিয়ার, লালমনিরহাট রেল বিভাগের ডিআরএম ও ডিটিএসকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তাঁদের কেউ ফোন রিসিভ করেননি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা