kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

অপহরণের ১৮ দিন পর মাদরাসাছাত্রীকে উদ্ধার

নড়াইল প্রতিনিধি   

১৭ নভেম্বর, ২০১৯ ২১:৫৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অপহরণের ১৮ দিন পর মাদরাসাছাত্রীকে উদ্ধার

নড়াইলের বিছালী থেকে ৮ম শ্রেণি পড়ুয়া এক মাদরাসাছাত্রীকে পাচারের উদ্দেশ্যে অপহরণের ১৮ দিন পরে যশোর থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ রবিবার দুপরে নড়াইল পুলিশ লাইনে সাংবাদিকদের একথা জানান জেলা পুলিশ সুপার। অপহরণকারী মামুনকে পাচার মামলায় জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, গত ৯ নভেম্বর পরিবারের পক্ষ থেকে নড়াইল সদর থানায় অভিযোগের পর জেলা পুলিশ সুপারের তৎপরতায় যশোরের জামদিয়ার একটি বাসা থেকে অপহরণকারী মামুনসহ ঐ মাদরাসাছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়। শনিবার রাতে উদ্ধারকৃত মাদরাসাছাত্রীকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে রবিবার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ ঘটনায় নড়াইল সদর থানায় একটি পাচার মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ভুক্তভোগী ছাত্রীর জানায়, বিছালী ইউনিয়নের রূখালী বাড়ি থেকে মাদরাসায় যাওয়ার সময় ভ্যানে পরিচয় ঘটে বাঁশগ্রাম ইউনিয়নের দাউদ হোসেনের পুত্র মামুনের সাথে। এ সময় নানা ধরনের খাবার দিয়ে ছাত্রীকে অজ্ঞান করে তাকে অপহরণ করা হয়। জ্ঞান ফিরলে মেয়েটি একটি দালানের ভেতর নিজেকে আবিষ্কার করে। গত কয়েকদিন তাকে খাবারের মধ্যে কিছু দিয়ে প্রায় সময় অচেতন করে রাখতো। এর মধ্যে ভারতে বেড়াতে যাবার প্রলোভন দেখিয়ে মেয়েটির সাথে বিয়ের নাটক করে অপহরণকারী। মেয়েটি বাড়ি কথা বলতে চাইলে দেওয়া হতো না। পরিবারের লোকজন পুলিশের সহযোগিতায় শনিবার তাকে যশোর থেকে উদ্ধার করে। মেয়েটি বর্তমানে সুস্থ্য থাকলেও ঠিকমতো কথা বলতে পারছে না।

নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিমউদ্দিন পিপিএম বলেন, মেয়েটিকে পাচারের উদ্দেশ্যে অপহরণ করা হয়েছিল। মেয়েটিকে বড় বিপদের হাত থেকে বাঁচাতে পেরে আমরা আনন্দিত। পাচারকারীকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা